১২ ইউটিউবার লবণ গুজবে জড়িত; গ্রেফতার মাঠে নেমেছে পুলিশ

279

।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

পেঁয়াজের পর লবণ নিয়ে যে গুজব ছড়িয়েছিলো তাতে সরাসরি জামায়াত বিএনপির বেশ কয়েকজন ইউটিউবার সামনে থেকে কাজ করে। ইতিমধ্যে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে বেশ কিছু ইউটিউবারকে চিহ্নিত করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। অভিযুক্তদের আটকে অভিযানও শুরু করেছে প্রশাসন।

গুজবের শুরুতেই ছাত্রশিবিরের ইউটিউবার হিসাবে পরিচিত ও সংগঠনটির নেতা খন্দকার মাহবুব আলম প্রকাশ্যে কাজ করে। ইউটিউবার খন্দকার মাহবুব আলম ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মোবারক হোসেনের অনুসারী হিসাবে ব্যাপক পরিচিত।

জানা গেছে, লবন নিয়ে গুজব ছড়াতে ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে জামায়াত মতাদর্শে বিশ্বাসী দোকানিদের কাছে লবণের দাম বাড়ছে এমন গুজবের সাক্ষাতকার নেয় খন্দকার মাহবুব আলম। শিবির নেতা খন্দকার মাহবুব আলম নিজের বন্ধুমহলে ফেন্সি মাহবুব নামে পরিচিত। ফেন্সিডিলে আসক্ত এই ইউটিউবারের ইউটিউব চ্যানেলের নামও ফেন্সি পিপল। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অনুসন্ধানে জানা গেছে খন্দকার মাহবুব আলম ডিজিটাল মার্কেটিং ও ফ্রিল্যান্সিংয়ের নামে মানি লন্ডারিংয়ের সাথেও যুক্ত।

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটিতে অধ্যয়নরত মাহবুব ছাত্র শিবিরের পক্ষ থেকে বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিবির নেতাদের লিয়াজোঁ প্রধান ছিল। বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের উস্কে দিয়ে এরআগে হরতাল ও ক্যাম্পাস বন্ধের দাবিতে ‘আন্দোলন’ শুরু করার ষড়যন্ত্রে সক্রিয়ভাবে ভূমিকা রাখে মাহবুব।

পুলিশ বলছে, কোটা আন্দোলনের সময় থেকে কোটা গ্রুপে শিবির অনুপ্রবেশে বিশেষ ভূমিকা রাখে মাহবুব। এর আগেও পদ্মা সেতু সহ বিভিন্ন ইস্যুতে তার ইউটিউব চ্যানেল থেকে গুজব ছড়ানো হয়েছে। তবে লবণ নিয়ে গুজব সৃষ্টিতে এবার মাহবুবের ভূমিকাই ছিল প্রধান।

জানা গেছে, জামায়াত শিবিরের সদস্যদের মাধ্যমে লবণ কিনে ও বিভিন্ন দোকানে ভীড় জমিয়ে গুজব ছড়াতে থাকে এই শিবির নেতা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তা দেশরিভিউকে বলেন, মাহবুব আলম, সাইফুল খান সহ ১২ জন ইউটিউবারকে গুজবের সাথে জড়িত থাকায় চিহ্নিত করা হয়েছে। তারা প্রত্যেকেই জামায়াত বিএনপি’র রাজনীতিতে জড়িত।

SHARE