১ সপ্তাহের মধ্যে ফেসবুক বদলে ফেলছে নাম!

118


ভার্চুয়াল রিয়েলিটি ব্যবহার করে মেটাভার্স গড়ার দিকে এগিয়ে যাওয়ার কথা আগেই জানিয়েছিল সোস্যাল মিডিয়া জায়ান্ট ফেসবুক। এবারে জানা যাচ্ছে, হোয়াটসঅ্যাপ-ইনস্টাগ্রামসহ ভার্চুয়াল জগতের বহুমাত্রিক সেবা দিয়ে যাওয়া এই ফেসবুকের নামই পাল্টে যাবে!

আগামীর বাস্তবতা মেটাভার্সকে গুরুত্ব দিতে গিয়েই ফেসবুক নিজেদের ব্র্যান্ডিংয়ে আমূল পরিবর্তন নিয়ে আসতে যাচ্ছে বলে খবর মিলেছে। আর সেই ঘোষণা আসতে পারে আগামী সপ্তাহখানেকের মধ্যেই। ফেসবুকের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে অবশ্য কোনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসেনি।
ফেসবুকের ব্র্যান্ডিং পরিবর্তনের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে যুক্ত একজনের বরাত দিয়ে বুধবার (২০ অক্টোবর) প্রযুক্তি বিষয়ক পোর্টাল দ্য ভার্জ এসব তথ্য জানিয়েছে। এ বিষয়ে জানতে পোর্টালটি ফেসবুকের একজন মুখপাত্রের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তিনি বক্তব্য দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

আগামী ২৮ অক্টোবর রয়েছে ফেসবুকের বার্ষিক সম্মেলন ‘কানেক্ট কনফারেন্স’। দ্য ভার্জ বলছে, ওই সম্মেলনেই ফেসবুক সিইও মার্ক জাকারবার্গ এ বিষয়ে ঘোষণা দিতে পারেন। তবে এর আগেও এ বিষয়ে ফেসবুক আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিতে পারে বলে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, নতুন করে ব্র্যান্ডিংয়ে নামার ক্ষেত্রে ফেসবুক নতুন করে একটি প্যারেন্ট কোম্পানির ঘোষণা দিতে পারে। সেক্ষেত্রে নতুন প্যারেন্ট কোম্পানির অধীনে থাকবে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম, অকুলাসসহ বর্তমানে ফেসবুকের অধীনে থাকা অন্য সেবাগুলো। বছর ছয়েক আগে গুগুল যেভাবে মাদার কোম্পানি অ্যালফাবেট তৈরি করেছিল, ফেসবুকের নতুন ব্র্যান্ডিংয়ের মডেলটিও তেমন হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
কয়েকদিন আগেই মেটাভার্সের ধারণা নিয়ে বেশ বড়সড় এক বিবৃতি দিয়েছে ফেসবুক। তাতে বলছে, ১০ হাজারেরও বেশি কর্মী নিয়ে তারা মেটাভার্স গড়তে কাজ করবে। অগমেন্টেড রিয়েলিটি সমর্থিত চশমার মতো হার্ডওয়্যার তেরি করবে তারা। আর এর মাধ্যমে ফেসবুক রীতিমতো স্মার্টফোনের বিকল্প নিয়ে আসার পরিকল্পনা করছে। আর গত জুলাইয়েই জাকারবার্গ জানিয়েছিলেন, আগামী কয়েক বছরেই তাদের সোস্যাল মিডিয়া কোম্পানি থেকে মেটাভার্স কোম্পানি হিসেবে রূপান্তর হতে দেখবেন সবাই।

মেটাভার্সসহ ফেসবুকের নতুন এই ব্র্যান্ডিংয়ের আলোচনা এমন একটি সময়ে এসে জোরালো হয়েছে যখন ফেসবুক নিজেই নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর চাপের মুখে রয়েছে। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটির আরেক সেবা ইনস্টাগ্রামে শিশুদের জন্য আলাদা সংস্করণের ধারণাটিও ব্যাপক সমালোচনার মুখে রয়েছে।
দ্য ভার্জের প্রতিবেদক বলছেন, ফেসবুকের নতুন নাম নিয়ে নতুন করে ব্র্যান্ডিংয়ের এই ধারণাটি সম্পর্কে খোদ ফেসবুকের সব কর্মীও অবগত নন। প্রতিষ্ঠানটির শীর্ষস্থানীয় কিছু কর্মকর্তাই বিষয়টি নিয়ে কাজ করছেন। সেক্ষেত্রে এর নতুন নাম কী হতে পারে, সে বিষয়ে তেমন ধারণা দিতে পারছেন না কেউই। তবে ফেসবুক ভার্চুয়াল রিয়েলিটি গ্লাস হিসেবে যে পণ্যটি নিয়ে গত কয়েক বছর ধরে কাজ করছে, তার নাম দেওয়া হয়েছে ‘হরাইজন (Horizon)’। এই নামটিকেও নিজেদের নতুন নাম হিসেবে ফেসবুক নিয়ে আসতে পারে— এমন অনুমান রয়েছে।

SHARE