৪টি ওয়ার্ডে বিএনপির একটি মনোনয়নপত্রও বিক্রি হয়নি

171

।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

দলীয়ভাবে যে কোনো নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত থাকলেও নির্বাচনের প্রতি আগ্রহ দেখাচ্ছেন না তৃণমূল বিএনপি নেতা-কর্মীরা। যার কারণে প্রতিটি নির্বাচনেই বিএনপির শোচনীয় পরাজয় ঘটছে।

চট্টগ্রামেও এর ব্যতিক্রম হচ্ছেনা। চসিক নির্বাচনে মেয়র পদ নির্বাচন করার জন্য কয়েকজন আগ্রহী হলেও কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে প্রার্থী সংকটে ভুগছে বিএনপি।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নগর বিএনপি ঘোষিত নির্দিষ্ট সময়ে দলীয় মনোনয়নপত্র গ্রহণে কাউকে পাওয়া যায়নি অন্তত ৪টি ওয়ার্ডে। ৩২ নম্বর আন্দরকিল্লা ওয়ার্ড, ৩৫ নম্বর বক্সিরহাট ওয়ার্ড, ১, ২, ৩ ও ৩৩, ৩৪, ৩৫ নিয়ে গঠিত সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ওয়ার্ডের ক্ষেত্রে এই ঘটনা ঘটে।

দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহের দিন ধার্য ছিল বুধ ও বৃহস্পতিবার (১৯ ও ২০ ফেব্রুয়ারি)। দুদিনই নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ে সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মনোনয়ন পত্র বিক্রি হয়। শেষদিন (বৃহস্পতিবার) রাত সাড়ে ৮টায় বিএনপির পাঠানো তালিকায় কাউন্সিলর পদে ৩২ ও ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডে কোনও প্রার্থীর নাম পাওয়া যায়নি। সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরের তালিকার ঘাটতি লুকাতে নগর বিএনপি নিয়েছে লুকোচুরির আশ্রয়। নামের তালিকা শুনে এক নেত্রী নিশ্চিত করেছেন ১, ২, ৩ ও ৩৩, ৩৪, ৩৫ ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে কেউ মনোনয়নপত্র নেয়নি।

বিশ্লেষকদের মতে, নির্বাচন প্রক্রিয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীর বিশ্বাস নেই। এ কারনে প্রতিটি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের পরাজয় ঘটছে।

পরিচয় গোপন রাখার শর্তে একজন রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন, ক্রমাগত পরাজয়ের কারণে বিএনপির কাছে নির্বাচন আজ দুঃস্বপ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে একটি দল যখন জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে তখন তাদের নির্বাচন ও গণতন্ত্রের প্রতি অনীহা সৃষ্টি হয়। বিএনপির ভেতর সেই লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। বিএনপি নেতা-কর্মীরা ধরেই নিয়েছে যে তাদের দল ও প্রার্থীদের যে অবস্থা তাতে ভোট দিয়ে কোন লাভ নেই। আর একারণে কিন্তু বিএনপির হয়ে নির্বাচন করার পক্ষে তেমন উচ্ছ্বসিত হন না দলটি নেতারা। বিএনপির হয়ে নির্বাচন করাকে অনেকেই লস প্রজেক্ট বলে মনে করেন।

এদিকে বিএনপি ছেড়ে দেয়া একাধিক নেতার সাথে কথা বলে জানা গেছে, রাজনৈতিক কৌশল নির্ধারণে ব্যর্থতা, তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের অবহেলা, বিভিন্ন জেলা-উপজেলা এমনকি ইউনিয়ন পর্যায়ের কমিটিগুলো নিয়ে নানা ধরণের অসন্তোষ, পদবাণিজ্য এমন একাধিক কারণে বিএনপির রাজনীতির প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছেন খোদ দলটির কর্মীরা। বিএনপির বড় সমস্যা হলো, মাঠের ত্যাগী ও পরীক্ষিত কর্মীদের অবমূল্যায়ন করা। বিপদের দিনে কোন রকম সহযোগিতা করে না বিএনপির হাইকমান্ড, এমন শত শত অভিযোগ করেছেন তৃণমূলের নেতারা। দীর্ঘ একযুগ সময় পেলেও বিএনপি তৃণমূলের রাজনীতি পুনর্গঠনে কোন পরিকল্পনা গ্রহণ করেনি। কেন্দ্রের ভুল সিদ্ধান্তের কারণে আজকে বিএনপির এই দুর্দশা। যার কারণে কেউ আজ বিএনপির ব্যানারে নির্বাচন করতে তেমন আগ্রহী হয় না। বিএনপির হয়ে রাজনীতি করা আর খাল কেটে কুমির ডেকে আনাকে সমানই মনে করছেন নেতারা। যার কারণে নির্বাচন নিয়ে তাদের এতো অনাগ্রহতা।

SHARE