৫ লাখ রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসন হাস্যকর: অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল

97

।।দেশরিভিউ।।
আসিয়ানের ফাঁস হওয়া প্রতিবেদনে সেনাবাহিনীর দ্বারা সংঘটিত রোহিঙ্গা নিপীড়নের বিষয়টিকে যথাযথভাবে তুলে ধরা হয়নি বলে অভিযোগ তুলেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। সংস্থাটির মিয়ানমার বিষয়ক গবেষক লরা হাই এ নিয়ে ‘বিস্ময়’ প্রকাশ করেছেন। আসিয়ানের ওই প্রতিবেদনে দুই বছরের কিছু বেশি সময়ের মধ্যে ৫ লাখ রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসনের সম্ভাব্যতা হাজির করা হয়েছে। তবে একে হাস্যকর আখ্যা দিয়েছেন লরা।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার পর রাখাইনে পূর্ব-পরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে নতুন করে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রায় সাড়ে ৭ লাখ মানুষ।  এদের সঙ্গে রয়েছেন ১৯৮২ সাল থেকে নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচার জন্যে বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নেওয়া আরও প্রায় ৩ লাখ রোহিঙ্গা। সবমিলে বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গার সংখ্যা ১০ লাখের বেশি। এএফপি তাদের প্রতিবেদনে জানিয়েছে, মিয়ানমার সরকারের কাছে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সংখ্যা ৫ লাখ যা বাংলাদেশ এবং জাতিসংঘের হিসাবের চেয়ে অনেক কম।  
রোহিঙ্গাদের নিয়ে আসিয়ানের ‘ইমার্জেন্সি রেসপন্স অ্যান্ড অ্যাসেসমেন্ট টিম’-এর তৈরি করা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুই বছরের মধ্যে বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের ৫ লাখ মানুষকে ফিরিয়ে নেবে মিয়ানমার। প্রতিবেদনটি নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের পক্ষ থেকে বিস্ময় প্রকাশ করা হয়। সংস্থাটির মিয়ানমার বিষয়ক গবেষক লাওরা হাই ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, আসিয়ানের প্রতিবেদন সেনাবাহিনীর নিপীড়নের মুখে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য হওয়া, এখনও রাখাইনে বসবাসরত রোহিঙ্গাদের ভয়াবহ দুরাবস্থা এবং সেখানকার জাতিগত সশস্ত্র সংঘাতের ব্যাপকতাকে হাজির করতে ব্যর্থ হয়েছে।

পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে গত বছরের জানুয়ারিতে বাংলাদেশ-মিয়ানমার প্রত্যাবাসন চুক্তি সম্পন্ন হয়। গত ৬ জুন নেপিদোতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমার ও জাতিসংঘের সংস্থাগুলোর মধ্যেও সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। তবে নানা জটিলতায় এখন পর্যন্ত প্রত্যাবাসন চুক্তির আওতায় একজন রোহিঙ্গাকেও ফিরিয়ে নেয়নি মিয়ানমার। আসিয়ানের প্রতিবেদনে সেনাবাহিনীর রোহিঙ্গা নিধনযজ্ঞ যথাযথভাবে তুলে ধরার বদলে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় মিয়ানমারের চলমান পদক্ষেপ নিয়ে প্রশংসা করা হয়েছে। ওই প্রতিবেদনকে উদ্ধৃত করে এএফপি জানিয়েছে, ম্যানুয়ালি কাজ করার পরিবর্তে স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে কাজ করা হলে ৫ কোটি রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শেষ করতে ‘দুই বছরের মতো’ সময় লাগবে।
রাখাইনে আকারান বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর চলমান যুদ্ধের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে অ্যামনেস্টির গত সপ্তাহের প্রতিবেদনে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে নতুন ‘যুদ্ধাপরাধ’র অভিযোগ আনা হয়েছে। ‘এমন বাস্তবতায় সেখানে [৫ লাখ রোহিঙ্গার] নিরাপদ-স্বেচ্ছামূলক ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসনের চিন্তা হাস্যকর’, বলেছেন লরা হাই।

SHARE