৫ সেকেন্ডে চিহ্নিত করা যাবে মাদকাসক্ত চালককে

431
(চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের পটিয়া ক্রসিংয়ে একজন ট্রাক চালকের শ্বাস-প্রশ্বাসের পরীক্ষা নিচ্ছেন একজন পুলিশ কর্মকর্তা। ছবি: রাজিব রায়হান)

|দেশরিভিউ, নিউজডেস্ক|

চালক মাদকাসক্ত কিনা তা জানা যাবে মাত্র ৫ সেকেন্ডে। এমন আ্যালকোহল ডিটেক্টর ডিভাইস নিয়ে রাস্তায় নেমেছে হাইওয়ে পুলিশ।

প্রতিদিন ঘটছে সড়ক দুর্ঘটনা। বাড়ছে হতাহতের সংখ্যা। যাত্রী কল্যাণ সমিতির মতে, চালকদের ৮০ ভাগই মাদকাসক্ত। অনেকেই নেশাগ্রস্ত অবস্থায় গাড়ি চালান। বিআরটিএতে চালকদের লাইসেন্স দেয়ার সময় স্বাস্থ্য পরীক্ষার বিধান রয়েছে। তবে ডোপ টেস্ট বা মাদকাসক্তি পরীক্ষার কোনো ব্যবস্থা নেই। এ অবস্থায় মদ্যপ চালকদের শনাক্ত করতে ‘অ্যালকোহল ডিটেক্টর’ নিয়ে রাস্তায় নেমেছে হাইওয়ে পুলিশ।

এ যন্ত্র দিয়ে মাত্র ৫ সেকেন্ডে মুখের বাতাস শুঁকে ওই ব্যক্তি মদ্যপ কিনা তা শনাক্ত করা যায়। হাইওয়ে পুলিশের কুমিল্লা রিজিওনের পুলিশ সুপার নজরুল ইসলাম দৈনিক আজাদীকে বলেন, অ্যালকোহল ডিটেক্টর ডিভাইস দিয়ে প্রথমবারের মতো আমরা পরীক্ষামূলক অভিযান শুরু করেছি। কোনো চালক যদি মদ্যপান করে গাড়ি চালায় তার বিরুদ্ধে উক্ত ডিভাইসের মাধ্যমে শনাক্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সারা দেশেই এটি চালু হয়েছে।

পুলিশ জানায়, অনেক চালক মাদকাসক্ত হয়ে গাড়ি চালানোর কারণে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। এ অবস্থা রোধে এবং মাদকাসক্ত চালকদের চিহ্নিত করতে চীন থেকে অ্যালকোহল ডিটেক্টর আমদানি করা হয়েছে। যন্ত্রটি দেখতে বড় মুঠোফোন সেটের মতো। সামনের দিকে চিকন পাইপের মতো বের হওয়া একটি অংশ আছে। মাদক পরীক্ষার অংশ হিসেবে এই যন্ত্রের সামনের পাইপ মুখে দিয়ে ফুঁ দিতে হয় চালকদের। এরপর ৪ সেকেন্ডের মধ্যেই যন্ত্রের মনিটরে ভেসে ওঠে ফলাফল। চালক মদ্যপ হলে শতাংশসহ ‘ইয়েস’ লেখা ওঠে। মদ্যপ না হলে ওঠে ‘নো’। যন্ত্রটি সারা দেশে হাইওয়ে পুলিশের কাছে দেয়া হয়েছে।

গত ১২ অক্টোবর থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন স্পটে এ অভিযান চালানো হচ্ছে। এতে দূরপাল্লার বাস-ট্রাক এবং ভারী যানবাহন চালানোর সময় চালকদের পরীক্ষা করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে পরীক্ষামূলকভাবে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে মনসা বাদামতলা এলাকায় পটিয়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির একটি টিম বিভিন্ন গাড়ি ও চালকদের ডিটেক্টর দিয়ে পরীক্ষা করেন।

হাইওয়ে পুলিশ জানায়, অত্যাধুনিক এই যন্ত্রে মাদকাসক্তের পরীক্ষার পাশাপাশি চালক ও গাড়ির কাগজপত্র নিরীক্ষা করে মামলা করা যাবে। ফলাফল ‘হ্যাঁ’ হলে সেক্ষেত্রে ওই চালকের নাম, গাড়ির নম্বর, লাইসেন্স নম্বর ও পরীক্ষাকারী পুলিশ কর্মকর্তার নাম, ব্যাজ নম্বর ও দায়িত্বরত ইউনিটের নাম যন্ত্রটিতে লিখে দিলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওই চালক ও পুলিশ কর্মকর্তার সব তথ্যসহ একটি প্রিন্ট কপি বের হবে। তখন এ কাগজ দিয়ে মোটরযান আইনের ১৪৪ ধারায় অভিযুক্ত চালকের বিরুদ্ধে মামলা করা যাবে। অপরদিকে ‘স্পিড গান ডিটেক্টর’ নামক যন্ত্রের সাহায্যে গাড়ির গতি নির্ণয় করা যাবে। গাড়ি কত কিলোমিটার গতিতে চালানো হচ্ছে তা এ যন্ত্রের মাধ্যমে সহজেই নিরূপণ করা যায়।

এ বিষয়ে পটিয়া ক্রসিং হাইওয়ে পুলিশ পরিদর্শক বিমল চন্দ্র ভৌমিক জানান, যানবাহনে শৃঙ্খলা ফেরাতে অ্যালকোহল ডিটেক্টর এবং স্পিড গান ডিটেক্টর যন্ত্রের ব্যবহার চট্টগ্রাম-কঙাবাজার মহাসড়কে ভালো ভূমিকা রাখছে। এতে চালকরা সাবধান হওয়ার পাশাপাশি যাত্রীরাও বেশ নিরাপদ বোধ করছে।

সরকারের এই উদ্যোগে যাত্রীরা নিরাপদ বোধ করলেও এর সঠিক ব্যবহার নিয়ে চালকদের অনেকে সন্দেহ পোষণ করছেন। তাদের মতে, এর ফলে চালকদের হয়রানি বেড়ে যেতে পারে।

প্রসঙ্গত, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এসবের মধ্যে রয়েছে মহাসড়কে চালকদের জন্য বিশ্রামাগার নির্মাণ এবং তারা মাদকাসক্ত কিনা তা পরীক্ষা করা। ইতোমধ্যে মাদকাসক্তি পরীক্ষার কাজ শুরু করেছে হাইওয়ে পুলিশ। পাশাপাশি হাইওয়ে পুলিশের প্রত্যেক ফাঁড়িতে একজন পুলিশ সদস্যকে ডাক্তারি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। তারা দুর্ঘটনা-কবলিত গাড়ির চালক ও যাত্রীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে পারবেন।

SHARE