৭ দিনেও আটক হয়নি বিএনপি’র সেই ‘ধর্ষক পৌর মেয়র’

392


।।স্থানীয় প্রতিনিধি, দেশরিভিউ।।

দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলা বিএনপি’র সহ সভাপতি এবং পৌরসভার মেয়র এ জেড এম মেনহাজুল হকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের হওয়ার এক সপ্তাহ পরেও আটক করতে পারেনি পুলিশ।।

এদিকে তার গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে পার্বতীপুর মহিলা জাগরণ সমিতি। মানববন্ধনে পৌর মেয়র মেনহাজুল হক এবং তার বড় ভাই বিএনপি’র সাবেক সাংসদ ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এ জেড এম রেজওয়ানুল হকের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলেছেন এলাকার নারীরা।

মানববন্ধন থেকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি পৌরসভার মেয়র এ জেড এম মেনহাজুল হককে দ্রুত গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি তোলা হয়। এ ছাড়া পৌরসভার সব অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতির বিষয়েও তদন্তের দাবি জানানো হয়।

এর আগে সংবাদ সম্মেলনে ‘নির্যাতিত’ নারী বলেন, “আমি গৃহিণী ও কয়েক সন্তানের জননী। পৌর মেয়র এ জেড এম মেনহাজুল হক আমাকে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে গত কয়েক বছরে অসংখ্যবার ধর্ষণ করেছেন। গোপনে তিনি আমার অশ্লীল ছবি তুলে সেগুলো ইন্টারনেটে ছাড়ার ভয় দেখিয়ে আমাকে ধর্ষণ করেন।

নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ জানান, সর্বশেষ গত ২৯শে জুন রাতে মেয়র এ জেড এম মেনহাজুল হক তাকে বাসায় ডেকে আনে। সেখানে পূর্ব থেকে অবস্থানরত এরশাদ, রবিসহ আরও পাঁচজন অজ্ঞাতনামা যুবক ওড়না দিয়ে আমার মুখ বেঁধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় বেশ কয়েকজন পথচারী চিৎকারে শুনে এগিয়ে এলে মেয়র ও তার সঙ্গীরা পালিয়ে যায়।

পরবর্তীতে ২ জুলাই পার্বতীপুর মডেল থানায় একটি মামলা হয়। মামলায় মেয়রসহ তিনজন ও অজ্ঞাতনামা আরও পাঁচজনকে আসামি করা হয়। এ ঘটনায় শুক্রবার দুপুরে আমজাদ হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে ঘটনার পর থেকে মেয়র মেনহাজুল পলাতক আছেন।

আরো পড়ুন:

গৃহবধূর মুখে ওড়না বেঁধে গণধর্ষন করলো বিএনপি’র পৌর মেয়র

 

 

SHARE