ধর্ষন অথবা যৌন আক্রমনের পর আপনার কি করনীয়?

381

।।দেশরিভিউ, নিউজরুম।।

ধর্ষন অথবা যৌন আক্রমনের পর আপনি মানসিক এবং শারীরিকভাবে বিপর্যস্ত হতে পারেন। এমন পরিস্থিতিতে ঘটনার পর পর অথবা কয়েক দিনের মধ্যে আপনি কেমন অনুভব করছেন তার ভিত্তিতে শুধুমাত্র আপনিই ঠিক করতে পারেন যে পরবর্তী কি সিদ্ধান্ত এবং পদক্ষেপ আপনি নিতে যাচ্ছেন।

তবে এজন্য আপনাকে কিছু পরামর্শ দেয়া যায়, যাতে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য আপনার জানা থাকে এবং আপনি প্রয়োজনীয় সাহায্য খুঁজে পান।

প্রথমেই নিরাপত্তা

যদি আপনি ধর্ষিত অথবা যৌন আক্রমনের শিকার হন, আপনার জন্য প্রথম পরামর্শ হল এমন কোথাও যান যেখানে আপনি নিরাপদ অনুভব করবেন, যেমন বাসা অথবা কোন বন্ধু অথবা আত্নীয়ের বাসা। আপনি আপনার নিকটস্থ

এরপর আপনি ঘটনার কথা বলতে পারলে, বিশ্বস্ত কাউকে জানানোর কথা ভাবুন। আপনার সাথে যা হয়েছে তার জন্য লজ্জিত বোধ করবেন না বা নিজেকে দোষারোপ করবেন না।

আপনার কথা বলা উচিতঃ

-একজন বন্ধু অথবা একজন পরিবারের সদস্য
-BRAC/অন্য যে কোন সামাজিক এনজিও
-বিশেষজ্ঞ সংস্থা যেমন আইন ও সালিশ কেন্দ্র
-পুলিশ কে ঘটনা জানানোর আগে নিজেকে এবং পরনের কাপড়-চোপড় পরিষ্কার করা থেকে বিরত থাকুন।
-যদি আপনি পুলিশকে জানানোর সিদ্ধান্ত নেন, সেক্ষেত্রে পুলিশ অপরাধীর পরিচয় সণাক্তকরন ও সফল বিচারিক মামলা প্রস্তুত করতে পারবে যদি ডিএনএ প্রমাণ সংগ্রহ করতে পারে। এই প্রমাণাদি সংগ্রহ করার জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসক আপনার লালা, মুত্র, রক্ত ও যৌনাংগের চুল এবং আপনার মুখ, যোনী ও পায়ু থেকে তুলার মাধ্যমে শ্লেষা সংগ্রহ করে রাখবেন।
যদি আপনি পুলিশ স্টেশনে যান, তাহলে পুলিশ বিশেষ পরীক্ষাগারে একজন চিকিৎসক এর মাধ্যমে এসব প্রমানাদি সংগ্রহ করার ব্যাবস্থা করবেন।

চিকিৎসা

পুলিশে রিপোর্ট করার বিষয়ে অনিশ্চিত থাকলেও ধর্ষন কিংবা যৌন আক্রমনের পর চিকিৎসা সহায়তা নেয়া উচিৎ। আপনি আহত হতে পারেন যার চিকিৎসা প্রয়োজন। জরুরী অবস্থার গর্ভনিরোধক বা ইমারজেন্সী পিল এবং যৌন বাহিত সংক্রমণ (STIs) ব্যাপারে এসময় পরামর্শ গ্রহণ করা জরুরি।

আপনি যেসব স্থানে যেতে পারেনঃ

-হাসপাতাল অথবা ইমার্জেন্সি ডিপার্টমেন্ট
-পরিবার পরিকল্পনা ক্লিনিক
-আপনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক
-সকল চিকিৎসক এবং নার্স গোপনীয়তার সাথে আপনার চিকিৎসা সহায়তা দিবেন, তারা পুলিশকে জানাবে না।
আপনি পুলিশকে জানাতে চাইলে চিকিৎসক অথবা নার্সকে বলুন যেন তারা কিছু ফরেনসিক নমুনা সংগ্রহ করার ব্যাবস্থা করে। এগুলি আপনি পরবর্তীতে প্রমান হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। নমুনা সংগ্রহ করার পরো আপনি পুলিশের কাছে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।

জরুরি জন্মনিয়ন্ত্রন পদ্ধতি

যদি জোরপূর্বক কোনো ধরনের জন্মনিরোধ (যেমন কনডম) ছাড়া আপনার সাথে যৌনমিলন করা হয়, তাহলে আপনার গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা আছে। জরুরী জন্মনিয়ন্ত্রন যদি সময়মত ব্যবহার করা হয় তাহলে গর্ভধারন এড়ানো যায়।

জরুরী জন্মনিয়ন্ত্রনের দুটি উপায় আছেঃ

জরুরী পিল (যা সকালের পরের পিল নামেও পরিচিত) এবং
কপার IUD (intrauterine device).
জরুরী পিল একটি ট্যাবলেট হিসেবে দেওয়া হয়, এটি অরক্ষিত যৌনমিলনের (জন্মনিরোধ ছাড়া যৌনমিলন) পর যত দ্রুত সম্ভব খেতে হয়। তবে জরুরী পিল অরক্ষিত যৌনমিলনের ৭২ ঘন্টা পর আর দেওয়া হয়না, কারন তখন এর কার্যকারিতা ব্যাপক হারে কমে যায়।

অরক্ষিত যৌনমিলনের ৫ দিনের মধ্যে অথবা আপনার ডিম্বাশয় থেকে ডিম্বানু মুক্ত (অভ্যুলেশন) হবার পর যত দ্রুত সম্ভব একজন চিকিৎসক অথবা নার্স এর মাধ্যমে কপার IUD গর্ভে স্থাপন করা হয়। IUD এর সাফল্যের হার প্রায় শতভাগ।

যৌন বাহিত সংক্রমণ (STIs)

আপনার কোন উপসর্গ না থাকলেও STIs এর জন্য পরীক্ষা করা উচিত। আপনার চিকিৎসক কিছু পরীক্ষা দিবেন। HIV এর পরীক্ষাও আপনি করিয়ে নিতে পারেন।

এছাড়া আপনি মায়া আপাকে জিজ্ঞেস করতে পারেন আপনার কি করা উচিত।

পুলিশের কাছে যৌন আক্রমন অথবা ধর্ষন হিসেবে রিপোর্ট করা

পুলিশের কাছে ধর্ষণ বা যৌন আক্রমণের রিপোর্ট করবেন কিনা তা একান্তই আপনার ব্যাক্তিগত সিদ্ধান্ত। আপনি এটা যেকোন সময় করতে পারেন, উদাহরনস্বরূপ, ঘটনার সাথে সাথেই অথবা কয়েক দিন পর।

এটা জেনে রাখা গুরুত্বপূর্ন যে আপনি ঘটনা ঘটার পর যত দ্রুত রিপোর্ট করবেন, পুলিশের পক্ষে প্রমানাদি সংগ্রহ করার সুযোগ তত বেশি থাকবে।

যদি আপনি দেরিতে রিপোর্ট করেন তবে অনেক প্রমানাদি হারিয়ে যেতে পারে। এমন ঘটনার ক্ষেত্রে ৭২ ঘন্টার মধ্যে মেডিকেল প্রমানাদি সংগ্রহ করা উচিৎ। আপনার কাপড়ও প্রমাণ হিসেবে নেয়া হতে পারে, তাই মনে করে সাথে অতিরিক্ত কাপড় নিয়ে যাবেন। যদি না থাকে তবে দুশ্চিন্তার কারন নেই পুলিশ আপনাকে অতিরিক্ত কাপড় সরবারহ করবে।

পুলিশরা ধর্ষন এবং যৌন হয়রানীর কেস পরিচালনা করে থাকে। সেখানে তারা আপনাকে সাহায্য করবে।

তাদের কিছু নির্ধারিত প্রক্রিয়া আছে, যার মাধ্যমে আপনার প্রয়োজনীয় সাহায্য নিশ্চিত করা যায় এবং একই সাথে যেখানে প্রাসংগিক সেখান থেকে প্রমাণ সংগ্রহ করে আক্রমনকারীকে সনাক্তকরন ও তার বিরুদ্ধে আদালতে বিচার কাজ পরিচালনা করা যায়।

প্রক্রিয়া

আপনি পুলিশ কে রিপোর্ট করলে প্রথমে একজন পুলিশ আপনার কাছ থেকে বিস্তারিত বিবরন সংগ্রহ করবে।

যদি ঘটনাটি তাৎক্ষনিক হয়ে থাকে তবে পুলিশ আপনার মেডিকেল পরীক্ষার ব্যবস্থা করবেন। এর মাধ্যমে আপনি যেন চিকিৎসা সহায়তা পান সেটা নিশ্চিত হবে এবং যেকোনো মেডিক্যাল প্রমাণ ও সংগ্রহ করা যাবে।

আপনি প্রস্তুত হলে পুলিশ আপনার কাছ থেকে লিখিত বক্তব্য নিবে। এই কেস কোর্টে গেলে এটাই হবে এই কেসের জন্য প্রধান প্রমান। এটার মানে আপনার লিখিত বক্তব্য গোপনীয় নয়। তবে, আপনার যাবতীয় ব্যক্তিগত তথ্য যেমন নাম, ঠিকানা, এই বক্তব্যে উল্লেখ করা হবে না।

বিব্রতকর অথবা কষ্টকর হলেও যত বেশী বিস্তারিত তথ্য দেওয়া সম্ভব, তা তাদেরকে দিন। যদি আপনি কোনো ঘটনার অংশ মনে করতে না পারেন, তবে তাদের কে তাও জানান। এই হামলার ঘটনার পরে আপনি নিজেকে পরিষ্কার করেছেন কি না তা জানান। ধর্ষণ বা যৌন আক্রমণের পূর্বে আপনি কোনো ধরনের ড্রাগ অথবা এলকোহল নিয়েছিলেন কিনা তাও জানান।

পরে আপনি বিস্তারিত ভুলে যেতে পারেন ভেবে দুশ্চিন্তা হলে মনে রাখার জন্য সবকিছু লিখে নোট আকারে হলেও লিখে রাখুন। উদাহরনস্বরূপঃ

-কোন সময়ে এটা হয়েছিল
-এই আক্রমন কেমনভাবে হয়েছিল
-প্রাসংগিক যে কোন কথোপকথন
-আক্রমন প্রতিরোধ করার জন্য কিভাবে চেষ্টা করেছিলেন
-আক্রমনকারীদের চেহারা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য
-আপনার বিরুদ্ধে কোন হুমকী দেওয়া হয়েছিল কিনা
-আক্রমনের সময় কোন অস্ত্র দেখানো হয়েছিল কিনা
-আপনি আহত হয়েছেন কিনা
-আক্রমনকারীরা কোনভাবে আহত হয়েছিলেন কিনা
পরমর্শ এবং সাহায্য

ধর্ষিত হওয়া অথবা যৌন আক্রমনের শিকার হওয়া অত্যন্ত্ বিপর্যয়কর অভিজ্ঞতা। একেকজন একেক ভাবে এর প্রতিক্রিয়া দেখায় এবং সময়ের সাথে সাথে আপনার অনুভূতি/প্রতিক্রিয়ারও পরিবর্তন হতে পারে। আপনার মধ্যে অনেক ধরনের আবেগ কাজ করতে পারে যেমন ভয়, উৎকন্ঠা, অপরাধ বোধ, তীব্র কষ্ট ইত্যাদি। কিন্তু গুরুত্বের সাথে সবসময় মনে রাখবেন যে আপনি ধর্ষন বা যৌন আক্রমনের শিকার হয়েছেন, এতে আপনার কোনো দোষ নেই।

এই ঘটনার অভিঘাত কাটিয়ে উঠার জন্য আপনার কিছু সাহায্য লাগতে পারে। হয়ত কারো সাথে কথা বলার মাধ্যমেও সেটা হতে পারে।

একজন কাছের বন্ধু অথবা পরিবারের সদস্য হতে পারে এই কষ্টকর অভিজ্ঞতা শেয়ার করার সবচেয়ে ভাল ব্যাক্তি। অথবা আপনি এমন কাউকে বলতে পারেন যাকে আপনি চিনেন না, যেমন একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ অথবা কোনো সাপোর্ট গ্রুপ। আপনি আপনার ঘটনাটি মায়া ভয়েসে পোস্ট করতে পারেন, অথবা যারা একই ধরনের অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে গিয়েছেন তাদের সাথে কথা বলতে পারেন।

আইন ও সালিশ কেন্দ্র (ASK) ভিকটিমদের আইনি সহায়তা, কাউন্সেলিং এবং আরো কিছু সার্ভিস দিইয়ে থাকে। আপনি তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন এখানে।

যদি আপনি উৎকন্ঠা অথবা বিষন্নতার উপসর্গ লক্ষ্য করে থাকেন তবে চিকিৎসকের কাছে যান, তিনি আপনাকে পরামর্শ ও সহায়তা দিতে পারেন। তারা আপনাকে একজন কাউন্সেলর এর কাছে প্রেরন করতে পারেন এবং হয়ত এন্টিডিপ্রেসেন্ট এর মত ঔষধ দিতে পারেন।

মনে রাখবেন আপনি ঘটনার পর পর ই সহায়তা চাইতে পারেন আবার কিছুদিন বা বছর পরেও চাইতে পারেন।

মায়া ডট কম

SHARE