নড়াইলের কালিয়ায় ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়, প্রধানমন্ত্রী বরাবরে অভিযোগ

2135

সাজিদুল ইসলাম শোভন, নড়াইল :
নড়াইলের কালিয়া উপজেলার বাঐসােনা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড সদস্য রকিত শেখের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে৷

ইতিমধ্যে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগে মামলাসহ প্রধানমন্ত্রী বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

এলাকাবাসী এবং অভিযােগকারী সূত্রে জানা যায়, মাত্র কয়েক বছর আগেও রকিত শেখ বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন। এমনকি বাঐসােনা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের
বিএনপির সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন রকিত শেখ। ২০০৮ সালে বর্তমান সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পর রকিত শেখ নিজের বলয়ের লোকজন নিয়ে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন৷

ধীরে ধীরে সরকার দলীয় স্থানীয় নেতাদের হাত করে এলাকার এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান, সংশ্লিষ্ঠ ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলেন। পরে এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে নিজের আলাদা প্রভাব বিস্তারে মনোযোগ দেন রকিত শেখ।

অভিযোগ উঠেছে, রকিত শেখের ভাই কাবুল শেখ
স্থানীয় ব্রাক এনজিও থেকে লোনের টাকা উত্তোলন করে সেই টাকা দিয়ে এলাকায় চড়া সুদের কারবার চালিয়ে
যাচ্ছেন৷ এনজিও সংস্থার টাকায় দুই ভাইয়ের সুদের কারবার চললেও এলাকায় কেউ মুখ খুলতে
সাহস পান না৷ সুদের টাকা পরিশোধে ব্যর্থ অনেকেই বর্তমানে এলাকা ছাড়া হয়েছেন নানা ধরনের অত্যাচারে৷ সব ভয়ের উর্ধ্বে এলাকার দু’একজন অন্যায়ের প্রতিবাদ করলে তাদের উপর নেমে আসে রকিত বাহিনীর অত্যাচার ও নির্মম নির্যাতন৷ হাত-পা ভেঙ্গে দেওয়াসহ বাড়ী থেকে উচ্ছেদের ঘটনাও ঘটেছে ওই এলাকায়৷ সুদের টাকার ভয়ে
অনেকে বর্তমানে পৈত্রিক বাড়ী ছেড়ে এখন নিরুদ্দেশ
রয়েছেন৷

অষ্ট্রিয়া আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি শেখ শামসুর রহমান এ এলাকার সন্তান। সাংবাদিকদের কাছে পেয়ে এ প্রবাসী রাজনৈতিক নেতা অভিযোগ করে বলেন, রকিত শেখ ও তার ২ ভাই এবং সন্ত্রাসী বাহিনী তার কাছে ১০
লক্ষ টাকা চাদা দাবী করেছিল। টাকা দিতে অস্বীকার করলে তারা বিভিন্ন ভাবে তাকে নির্যাতন চালিয়েছে। এমনকি তার বাড়ীতে ঢুকে ডাকাতির ঘটনা ও ঘটিছে এ চক্রটি। তিনি বলেন, এলাকায় একটি মসজিদ নির্মান
করলেও তারা মসজিদ থেকে তার নামফলক মুছে ফেলেছে।

অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে মসজিদটির মোয়াজ্জিনের কাছে। তিনি বলেন, মসজিদটা নির্মান করেছেন হাজী শামসুর রহমান৷ কিন্তু তার নামফলক থাকার কারনে সমস্যা হয়৷ শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে নামফলক মুছে দেওয়া হয়৷

এলাকার ভুক্তভোগী এক বৃদ্ধা নাম প্রকাশ না করার শর্তে অভিযোগ করে বলেন, সুদের টাকা দিতে না পারায় রকিত ও তার দলবল তার ছেলেকে বাড়িতে এসে মারধর করে। তিনি প্রতিবাদ করলে তাকেও মারধর করে। তিনি এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দিতে গেলে থানা পুলিশও কোন পদক্ষেপ না নিয়ে তার ছেলেকে গ্রাম থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে।বর্তমানে তার ছেলে গোপালগঞ্জে বসবাস করছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, রকিত শেখ এবং তার ভাই শাহানুর শেখ, কাবুল শেখ, বাবুল শেখের সাথে সুদের কারবারে জড়িয়ে বিল্লাল, তারিকুল, খোকনসহ অনেকেই এলাকা ছেড়ে চলে গেছে। সূত্রটি বলছে, রকিত শেখের ভাই কাবুল শেখ ব্রাক এনজিও থেকে লোন এনে সেই টাকা দিয়ে প্রথমে এলাকায় শাপলা সমবায় সমিতি নামে সুদের কারবার প্রতিষ্ঠা করেন। তবে রকিত শেখ এমন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করলেও সমবায় সমিতির রেজিষ্ট্রেশন আছে বলে দাবী করেন। যদিও এর স্বপক্ষে তিনি কোন কাগজ পত্র দেখাতে পারেননি। জানাতে পারেননি কোথায় তার নিজস্ব কার্যালয়।

এদিকে অনু্সন্ধানে উঠে এসেছে ব্রাক ব্যাংকের টাকা নিয়ে অভিনব সুদের কারবারের চাঞ্চল্যকর তথ্যও। জানা গেছে স্থানীয় ব্রাক ব্যাংক থেকে লোন পাশ হওয়ার পর তা মাসে একবার কিস্তি প্রদান করতে হয়। কিন্তু এ অর্থ রকিত শেখ ও তার ভাইয়েরা সমবায় সমিতির মাধ্যমে চড়া সুদেশ বিনিময়ে বিলি করেন এবং কিস্তি আদায় করে ‘দৈনিক’ ভিত্তিতে। ব্রাক অফিসকে মাসে শতকরা যেখানে ১০ টাকা লাভ দিতে হয়, সেখানে তারা দৈনিক ১৫ শতাংশ হারে টাকা লাভ করেন।

এসব অভিযোগের ব্যাপারে রকিত শেখ বলেন, তিনি বিএনপি সাধারন সম্পাদক ছিলেন অনেক আগে, এখন তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেন। এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এর সাথে চলাফেরা করার কথাও অকপটে স্বীকার করেন তিনি। মসজিদের দাতা শেখ সামসুর রহমানের নাম মুছে ফেলা প্রসঙ্গে রকিত শেখ বলেন, কিছু লোক নামাজ পড়তে আসতো না, তখন ফতোয়া আনা হয়। তাই সবাই বললো নামফলক মুছে দিতে হবে। পরে সেই নাম মুছে দিলে সবাই নামাজ পড়তে আসেন। কে মুছে দিয়েছে, কবে মুছেছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি নিজের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেন। রকিত শেখ জানান, তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সম্পুর্ন মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন।

এ ব্যাপারে নড়াইল জেলার পুলিশ সুপার মো: জসিম উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিজ্ঞ আদালতে অষ্ট্রিয়া প্রবাসী শেখ শামসুর রহমান বাদী হয়ে রকিত শেখ, শাহানুর শেখ, বাবুল শেখ গংসহ আরো কয়েকজনের নামে দায়েরকৃত মামলার তদন্ত করতে আদেশ দিয়েছেন। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে। প্রমানিত হলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এদিকে এলাকার শান্তি শৃংখলা রক্ষা করতে ইউপি সদস্য রকিত শেখ ও তার দোসরদের আইনের আওতায় আনতে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসি।

SHARE