অপূর্বের ‘উস্কানিমূলক’ ফেসবুক পোস্ট, দর্শকদের তোপের মুখে সরিয়ে নিলেন

191


দেশরিভিউ সংবাদ।।
শিল্পীদের সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা রয়েছে। একজন শিল্পীকে সমাজ অনুকরণ করে। সুতরাং তাকে খেয়াল রাখতে হবে তার আচরণে, তার কার্যকলাপে কোনোভাবেই যেন সমাজের কাউকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত না করে। তার কাজে যেন দায়িত্বশীলতা প্রকাশ পায়। ভারতে একদল যুবক বাংলাদেশের পতাকাকে অপমান করাতে আপনার মতো আমাদেরও খারাপ লেগেছে। তবে, ঐ ঘটনার ভিডিও আপনি ফেসবুকে দিয়ে প্রতিবাদ জানানোর সময় এখন নয়। দেশে হিন্দু-মুসলিমের যে ভার্তৃত্বের সংকট চলছে আপনার এ প্রতিবাদ তা আরও সহিংসতার জন্য উস্কে দিবে। এটা আপনার কাজ নয়।

গতকাল রাতে নাট্য অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্বের ফেসবুক কমেন্টে এসে এভাবে নিজের অনুভূতি জানাচ্ছিলেন এক দর্শক।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় হিন্দু ধর্মের অনুসারীদের ঘর-বাড়ি, মন্দিরে হামলা ভাঙচুরের প্রতিবাদে ভারতের একটি এলাকায় প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন
করে স্থানীয় জনসাধারণ। সমাবেশ চলাকালে এক যুবককে বাংলাদেশের পতাকা মাটিতে ফেলে পদদলিত করতে যায়। সোমবার রাতে সে ঘটনার ভিডিও নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে দেন অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব।
এসময় তিনি তার স্ট্যাটাসে ভারতীয়দের এমন ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে ঘৃণা প্রকাশ করেন। এরপরেই মূলক ভিডিওটিতে শতশত কমেন্ট আসতে দেখা যায়। কমেন্টে অনেককে হিন্দু সম্প্রাদায়ের লোক নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করতে দেখা গেছে। তবে অধিকাংশ দর্শক অপূর্বের এধরনের স্ট্যাটাস ‘অসময়ে’ ধর্মীয় উস্কানি হিসাবে অভিযুক্ত করেন। শেষপর্যন্ত দর্শকদের রোষানল থেকে বাঁচতে ভিডিওটি সরিয়ে নিতে বাধ্য হোন জনপ্রিয় এ অভিনয়শিল্পী।

আব্দুল মাজেদ নামের একজন কমেন্টে লিখেন
‘আল্লাহ বলছেন, ‘হে ঈমানদারগণ! তারা আল্লাহকে বাদ দিয়ে যেসব দেবদেবীর পূজা-উপাসনা করে, তোমরা তাদের গালি দিও না। যাতে করে তারা শিরক থেকে আরো অগ্রসর হয়ে অজ্ঞতাবশত আল্লাহকে গালি দিয়ে না বসে’ (সূরা আনআ’ম, ৬:১০৮)।’ কিন্তু আমার বাংলাদেশের মানুষ প্রতিনিয়ত ভারতকে গালি দিয়ে নিজেদের মুসলমান দাবী করে আপনি সেটা নিয়ে কিছু লেখেনি না কেন?

হুমায়ুন কবির লিখেন, আগে নিজের দেশের সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসীদের বিপক্ষে কথা বলুন। কুমিল্লায় কোরআন অবমাননার প্রতিবাদে সারাদেশে হিন্দুদের উপর নির্যাতন নিয়ে কিছু বলুন। যারা প্রতিনিয়ত একটি ধর্মের অনুসারীদের ‘ইন্ডিয়ার দালাল’ বলে গালি দিচ্ছে তাদের নিয়ে কিছু বলতে আপনাকে দেখিনি। বাংলাদেশের কিছু লোক যখন ভারতকে গালি দেয় তখন আপনি চুপ ছিলেন। যখন বাংলাদেশের আমন্ত্রণে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে আসার কথা তখন একদল লোক ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও পতাকা পুড়িয়ে রাস্তায় মিছিল করেছিল তখনও আপনি চুপ ছিলেন। আজকে ভারতের ঘটনাকে টেনে এনে বাংলাদেশের চলমান ধর্মীয় সন্ত্রাসকে আপনি আরও উস্কে দিচ্ছেন।

আরিফ নামের অন্য এক দর্শক লিখেন, আফগানিস্তানে হামলার প্রতিবাদে আমরা মার্কিন পতাকা পুড়েছি, মায়ানমারে রোহিঙ্গা নির্যাতনের সময় আমরা সেদেশে পতাকা আর সান সুচির পতাকা পুড়েছি। ভারতের কাশ্মীরের ঘটনায় একই কাজ করেছে বাংলাদেশের মানুষ। আপনারা যখন হিন্দুদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিচ্ছেন তখন তারাও একই কাজ করেছে এবার। ইট মেরেছেন এখন পাটকেল খাবেন না?

হাসানুজ্জামান লিখেন, ৯০ এর দশকে ভারতে বাবরি মসজিদ ভাঙার জের ধরে বাংলাদেশে হিন্দুদের উপর নির্যাতন চালালে ৫ লাখ হিন্দু ভারতে পালিয়ে যায়। ২০০১ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে জামায়াত-বিএনপি আবারও হিন্দুদের অত্যাচার করলে এক লাখ লোক ভারতে চলে যায়। এভাবেই সেদেশের মানুষের মনে বাংলাদেশের মানুষের বিরুদ্ধে খারাপ ধারনা তৈরি হয়েছে। আপনার এসব নিয়েও কথা বলা দরকার। যেন ভবিষ্যতে এমন ঘটনা না হয়।

SHARE