অপ্রতিরোধ্য লিটন , বাংলাদেশের দুইশ পার

72

দেশরিভিউ , স্পোর্টস ডেস্ক :

মাথার ওপর ইনিংস পরাজয় এড়ানোর জন্য ৩৯৫ রানের বিশাল বোঝা। দলের সংগ্রহ ১২৮ হতেই সাজঘরে ফিরে গেছেন প্রথম পাঁচ ব্যাটার। ইনিংস ব্যবধানে পরাজয়ের শঙ্কায় দাঁড়িয়ে পাল্টা আক্রমণের পথই বেছে নিলেন লিটন দাস। সঙ্গী হিসেবে পেয়ে গেলেন নুরুল হাসান সোহানকে।

রীতিমতো ওয়ানডে স্টাইলে খেলে ক্যারিয়ারের ১২তম টেস্ট ফিফটি তুলে নিয়েছেন লিটন। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬৩ ওভার শেষে ৫ উইকেটে ২২৯ রান। ইনিংস পরাজয় এড়াতে এখনও বাকি ১৬৬ রান।

শেষ ১০ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে ৭৬ রান যোগ করেছেন লিটন ও সোহান। বিশেষ করে ট্রেন্ট বোল্টের করা ৬১তম ওভারের প্রথম তিন বলে হ্যাটট্রিক বাউন্ডারিসহ মোট চারটি চার মেরেছেন লিটন। এর আগে কাইল জেমিসনের ওভারে হাঁকান চার ও ছয়।

মাত্র ৬৯ বলে ছয় চার ও এক ছয়য়ের মারে চলতি সিরিজে নিজের দ্বিতীয় ফিফটি পূরণ করেছেন লিটন। এখন পর্যন্ত ১০ চার ও এক ছয়ের মারে ৮০ বলে ৬৯ রানে অপরাজিত রয়েছেন লিটন।

ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে লিটনকে সঙ্গে দেওয়া সোহানও খেলছেন সাবলীলভাবে। তিনি ৪৮ বল থেকে সাত চারের মারে করে ফেলেছেন ৩৫ রান। এ দুজনের জুটিতে এসেছে ঠিক ১০০ রান, তাও মাত্র ৯৯ বলে।

নিজেদের প্রথম ইনিংসে ১২৬ রানে অলআউট হয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করেছিল বাংলাদেশের। নিউজিল্যান্ডের করা ৫২১ রানের চেয়ে ৩৯৫ রানে পিছিয়ে থাকায় স্বাভাবিকভাবেই বাংলাদেশকে ফলোঅন করায় স্বাগতিকরা। আজ দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাটিং শুরু করে বাংলাদেশ।

প্রথম ইনিংসের ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে টপঅর্ডার ব্যাটারদের প্রত্যেকেই ভালো শুরু করেন। কিন্তু তারা কেউই নিজেদের ইনিংসটা বড় করতে পারেননি। সাদমান ইসলাম ২৭, মোহাম্মদ নাইম শেখ ২৪ ও নাজমুল হোসেন শান্ত আউট হয়েছেন ২৯ রান করে।

শুরু থেকেই সাবলীল মনে হচ্ছিল প্রথম ম্যাচে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করা মুমিনুলকে। আরও একটি ঝকঝকে ইনিংসের আশাই ছিল তার ব্যাট থেকে। কিন্তু নেইল ওয়াগনারের বলে ড্রাইভ খেলতে গিয়ে ব্যক্তিগত ৩৭ রানে প্রথম স্লিপে ধরা পড়ে যান বাংলাদেশ অধিনায়ক।

এরপর ইয়াসির আলি রাব্বিও বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি উইকেটে। নেইল ওয়াগনারের বাউন্সারে সাজানো ফাঁদে পা দিয়ে ৯ বলে ২ রান করে ফেরেন তিনি। মাত্র ১২৮ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে পাল্টা আক্রমণের পথেই হাঁটেন লিটন ও সোহান। এ দুজনের জুটিতেই এগুচ্ছে বাংলাদেশ।

 

SHARE