আওয়ামী লীগে বিদ্রোহ দমনে কঠোর পাঁচ ব্যবস্থা

82


দেশরিভিউ সংবাদ।।
দলের ভেতর বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি, নৌকা প্রতীকের বিরোধিতা করে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়া এবং প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে নৌকা প্রতীকের বিরোধিতা করার ব্যাপারে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইউনিয়ন পরিষদের পাঁচ দফা নির্বাচন এবং নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলের বিদ্রোহী এবং বিদ্রোহীদের মদদ দেওয়া নেতাদের বিষয়ে একই অবস্থান থাকবে বলে জানিয়েছে দলটির দায়িত্বশীল সূত্র।

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, বিদ্রোহ দমনের ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ সভাপতি পাঁচ রকমের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।

১. সতর্ক করে দেওয়া: যে সমস্ত নির্বাচনী এলাকায় বিদ্রোহী প্রার্থীরা দাঁড়িয়েছেন, যেখানে মনোনয়নের কোনরকম ত্রুটি ছিল বলে প্রমাণিত হবে সেখানে বিদ্রোহী প্রার্থীদের সতর্ক করা হবে, ভবিষ্যতে যেন তারা দলের স্বার্থবিরোধী কোনো রকম কাজকর্ম না করেন। সেজন্য তাদের শেষবারের মতো তাদেরকে সতর্ক করা হবে।

২. দলের পদ বঞ্চিত: যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হবেন তাদেরকে দলের কোন পদে রাখা হবে না। স্থানীয় পর্যায়ের কমিটি থেকে উচ্চপর্যায়ের কমিটি গুলোতে যদি তারা থাকেন তাহলে তাদেরকে বাদ দিতে হবে। শুধু প্রার্থী নয়, যারা ওই বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে পক্ষে কাজ করেছেন তাদেরও পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হবে। ইতিমধ্যে বেশকিছু এলাকায় দলীয় পদ থেকে কয়েকজনকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

৩. ভবিষ্যতে নৌকা প্রতীক না দেওয়া: যারা নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে কাজ করবেন তাদের ভবিষ্যতে আর কোনো নির্বাচনে নৌকা প্রতীক দেয়া হবে না। এমনকি আওয়ামী লীগ সভাপতি এটিও বলেছেন যে, যদি কোন এমপিও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন বা স্থানীয় নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের বিরোধিতা করেন তাহলে ভবিষ্যতে তাকে মনোনয়ন দেয়া হবে না। এরকম ৮৪ জন এমপির একটি প্রাথমিক তালিকা তৈরি করা হয়েছে বলে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।

৪. কেন্দ্রীয় পদ পাবেনা: আওয়ামী লীগের কেউ যদি বিদ্রোহী প্রার্থীদেরকে মদদ দেয় বা বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থনে কাজ করে, তাদের কারণে যদি নৌকা প্রতীকের বিপর্যয় ঘটে তাহলে তারা ভবিষ্যতে কোনদিন দলের কেন্দ্রীয় পদ পাবেনা। তারা কালো তালিকাভুক্ত হবে এবং ভবিষ্যতে কোনো ভালো পদ প্রদানের ব্যাপারে তাদের ব্যাপারে নেতিবাচক সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

৫. বহিষ্কার: চূড়ান্ত শাস্তি হিসেবে বহিষ্কারাদেশ গ্রহণ করা হবে। যদি দেখা যায় কেই বাড়াবাড়ি রকমে বিদ্রোহী প্রার্থীদের মদদ দিয়েছে এবং তাদের কারণে আওয়ামী লীগের স্বার্থ ব্যাপকভাবে ক্ষুণ্ণ হয়েছে তাদেরকে বহিষ্কার করা হবে।

আওয়ামী লীগের এ সিদ্ধান্তগুলো আগামী কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকের চূড়ান্তভাবে অনুমোদিত হবে।

SHARE