আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেই পরিচালিত হচ্ছে ছাত্রদলের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড

71

।।দেশরিভিউ সংবাদ।। গত ১৪ জুলাই ২০২১ খ্রিঃ বুধবার জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল উভয়ই স্বাক্ষরপূর্বক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ছাত্রদলের সুপার ইউনিট খ্যাত ঢাকা মহানগর ছাত্রদলের ৪টি (উত্তর, দক্ষিণ, পূর্ব, পশ্চিম) ইউনিটের দুই (০২) সদস্য বিশিষ্ট  আহবায়ক কমিটি অনুমোদন করেছে (কপি সংযুক্ত)। যাতে স্পষ্টতই বিজ্ঞ আদালতের নিষেধাজ্ঞাকে অবজ্ঞা ও অমান্য করা হয়েছে।

এছাড়াও তারা বিভিন্ন জেলা, মহানগর, উপজেলা ইউনিটের নতুন কমিটি ঘোষণা এবং পূর্বের কমিটি স্থগিত করাসহ বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় সাংগঠনিক সফর চলমান রেখেছে। তাদের এই আদালত অবমাননা ও  অবজ্ঞার বিষয়টি কি বিজ্ঞ আদালত আমলে নেবে না?

ঘোষিত কমিটিতে মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক জসিম সিকদার রানা, সদস্য সচিব রুহুল আমিন সোহেল; মহানগর দক্ষিণে আহ্বায়ক শাহ আলম (পাভেল সিকদার), সদস্য সচিব নিয়াজ মাহমুদ নিলয়; মহানগর পূর্ব শেখ খালিদ হাসান জ্যাকি, সদস্য সচিব আল আমিন এবং মহানগর পশ্চিমে মহসিন সিদ্দিকী রনি ও সদস্য সচিব আশরাফুল হোসেন মামুন।

গত ১৬ জুন ২০২১ খ্রিঃ মেয়াদোত্তীর্ণ ঢাকা মহানগর উত্তর, দক্ষিণ, পূর্ব ও পশ্চিম ছাত্রদলের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল। সে সময় সংগঠনের নেতারা জানান, প্রতিটি ইউনিটকে সুশৃঙ্খল, সুসংগঠিত ও গতিশীল করে গড়ে তোলার জন্য আগামী এক মাসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট নতুন কমিটি গঠন করা হবে। ঘোষণা অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই এসব কমিটি ঘোষণা করেছে সংগঠনটি।

প্রকৃতপক্ষে ছাত্রদলের বর্তমান কমিটির যাবতীয় সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে আদালতের স্পষ্ট আদেশকে অমান্য করে। কেননা, ছাত্রদলের সাংগঠনিক কার্যক্রমে বিএনপি নেতাকর্মীদের অযাচিত হস্তক্ষেপ ও কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে অযোগ্যদেরকে বিভিন্ন ইউনিটে গুরুত্বপূর্ণ পদে পদায়নের অভিযোগ এনে ছাত্রদলের সহ ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আমান উল্লাহ আমান বাদী হয়ে গত ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রিঃ ঢাকা জেলার ৪র্থ সিনিয়র জজ আদালতে একটি মামলা (নং-১২৮/২০১৯) দায়ের করেন। পরবর্তীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা আমান্য করে ছাত্রদলের নতুন কমিটি গঠিত হলে মামলার বাদী উক্ত কমিটির কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে একই আদালতে গত ০১ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রিঃ ভায়োলেশন মিসকেস মামলা (নং-১৮/২০১৯) দায়ের করেন। বর্তমানে ছাত্রদলের নতুন কমিটি এবং ছাত্রদল সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কার্যক্রমের উপর আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রিঃ ছাত্রদলের নবনির্বাচিত কমিটির সব কার্যক্রমে অন্তবর্তীকালীন স্থগিতাদেশ দিয়েছিল আদালত। পাশাপাশি ছাত্রদলের নতুন কমিটির সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক মো. ইকবাল হোসেন শ্যামলকে সাত দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নির্দেশও দিয়েছিল আদালত। ঢাকার চতুর্থ সহকারী জজ নুসরাত সাহারা বীথি এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ আদেশ দেন।
মামলার বাদী আমান উল্লাহ আমান এর আইনজীবী সাত্তার উল্লাহ বলেন,“গত ১২ সেপ্টেম্বর বাদীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কাউন্সিল আয়োজনের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন আদালত। পাশাপাশি বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ১০ জনকে সাত দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নির্দেশও দেন। ওই স্থগিতাদেশ থাকা সত্ত্বেও গত ১৯ সেপ্টেম্বর কাউন্সিল করে ছাত্রদলের কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাই বাদী ছাত্রদলের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে মামলাটিতে ১৩ ও ১৪ নম্বর বিবাদী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার আবেদন করেন। একই সাথে কমিটির কার্যক্রমের ওপর নিষেধাজ্ঞারও আবেদন করেন তিনি। আদালত তার আবেদন মঞ্জুর করেছেন”।

এর আগে, একই আদালতে ছাত্রদলের কাউন্সিল স্থগিত চেয়ে আবেদন করেছিলেন আমান উল্লাহ আমান। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালতের নিষেধাজ্ঞায় ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রিঃ ছাত্রদলের কাউন্সিল স্থগিত হয়ে যায়। তবে এ নিষেধাজ্ঞার নিষ্পত্তি না করেই গত ১৮ সেপ্টেম্বর রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের বাসায় ঐ কাউন্সিল আয়োজন করা হয়। উক্ত কাউন্সিলে ৫৬৬ জন কাউন্সিলরের মধ্যে ৫৩৩ জন উপস্থিত ছিলেন। তাদের মধ্যে ৪৮১ জন ভোট দেন। তাদের ভোটে সভাপতি নির্বাচিত হন মো. ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন মো. ইকবাল হোসেন শ্যামল।

SHARE