মঙ্গলবার, মার্চ ৫, ২০২৪

পুতিনের যুদ্ধবিরতির ঘোষণাকে চক্রান্ত বলছেন জেলেনস্কি

অর্থোডক্স খ্রিস্টানদের বড় দিন উপলক্ষে ইউক্রেনে টানা ৩৬ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তার এই ঘোষণাকে একটি কৌশলী চক্রান্ত অ্যাখ্যা দিয়ে ভালোদিমির জেলেনস্কি বলেন, এর অর্থ হলো পূর্ব ডনবাসে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর অগ্রগতি থামিয়ে দেওয়া এবং আরও রাশিয়ান সেনা প্রবেশের সুযোগ তৈরির প্রচেষ্টা মস্কোর একটি কৌশল।

অর্থোডক্স খ্রিস্টানদের বড় দিন উপলক্ষে ইউক্রেনে যুদ্ধবিরতি পালনের জন্য বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) রুশ সেনাদের নির্দেশ দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ইউক্রেনীয় সময় শুক্রবার দুপুর থেকে শনিবার মধ্যরাত পর্যন্ত এই যুদ্ধবিরতি কার্যকর থাকবে। একই সঙ্গে তিনি ইউক্রেনকেও যুদ্ধবিরতি পালনের আহ্বান জানান। তবে কিয়েভ বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করায় যুদ্ধবিরতি রাশিয়া একতরফাভাবে পালন করবে কিনা তা স্পষ্ট করেনি ক্রেমলিন।

পুতিনের যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবের প্রসঙ্গে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ভাষণে ইউক্রেনীয় প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি অভিযোগ করে বলেছেন, ‘মস্কো বার বার কিয়েভের শান্তি পরিকল্পনা উপেক্ষা করে গেছে।’

ভার্চুয়ালি ভিডিও ভাষণে আরও বলেন, ‘রাশিয়া এখন ক্রিসমাসকে একটি আবরণ হিসাবে ব্যবহার করতে চায়। ডনবাসে আমাদের সেনাদের অগ্রগতি রোধ করতে এবং সরঞ্জাম, গোলাবারুদ এবং তাদের সেনাদের আমাদের অবস্থানের কাছাকাছি আনতে এই সুযোগ কাজে লাগাতে চাচ্ছে। এটা আসলে তাদের কী দেবে? তাদের সার্বিক লোকসান আরও বাড়বে।’

জেলেনস্কি আরও বলেন, যখন ‘রাশিয়ান সেনারা ইউক্রেন ত্যাগ করবে বা তাড়িয়ে দেওয়া হবে, তখনই কেবল যুদ্ধ শেষ হবে।’

ইউক্রেন ও রাশিয়ার প্রতি যুদ্ধবিরতি পালনের আহ্বান জানিয়েছিলেন। প্রাচীন জুলিয়ান বর্ষপঞ্জি অনুসারে, রাশিয়ার অর্থোডক্স গির্জা প্রতি বছরের ৭ জানুয়ারি বড় দিন উৎসব পালন করে।

গত বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরু করেছে রাশিয়া। এতে পুরো বিশ্বে অস্থিরতা ছড়িয়ে পড়ে। দিন যত গড়াচ্ছে যুদ্ধ থামার কোনও লক্ষণ নেই। ইউক্রেনে যুদ্ধে এখন পর্যন্ত দেশটিতে কয়েক হাজার মানুষ মারা গেছেন।

সর্বশেষ