বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪

অস্ত্র কেনার প্রস্তাব ইউক্রেনের, চীনের ‘না’

চীনের কাছ থেকে অস্ত্র কিনতে চেয়ে বিফল হয়েছে ইউক্রেন। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, রাশিয়া কিংবা ইউক্রেন— কোনো পক্ষের কাছেই অস্ত্র বিক্রি করবে না বেইজিং।

জার্মানির মিউনিখ শহরে আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা জোট মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্সের সম্মেলন শুরু হয়েছে গত শনিবার থেকে। ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্র কুলেবা এবং চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই— উভয়ই সেই সম্মেলনে গিয়েছেন।

সম্মেলনের অবসরে এক দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে ওয়াং’কে কুলেবা জানান, তার দেশ চীনের কাছ থেকে অস্ত্র কিনতে চায়। কিন্তু সেই প্রস্তাব নাকচ করে দিয়ে ওয়াং ই বলেন, ‘চীন কখনও সংঘাতপীড়িত অঞ্চলে প্রাণঘাতী অস্ত্র বিক্রি করে না। কারণ বেইজিং বিশ্বাস করে, সংঘাত কবলিত অঞ্চলে অস্ত্র বিক্রি করা আগুনে জ্বালানি যোগ করার মতোই ক্ষতিকারক।’

‘চীন সবসময় শান্তির পক্ষে। এমনকি, যদি শান্তির একটি রশ্মিও দেখা যায়, তাহলেও চীন সেজন্য কাজ করবে,’ কুলেবাকে বলেন ওয়াং।

মিনস্ক চুক্তিতে স্বাক্ষর করা সত্ত্বেও ক্রিমিয়াকে রুশ ভূখণ্ড হিসেবে স্বীকৃতি না দেওয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্যপদ প্রাপ্তির জন্য ইউক্রেনের তদবিরের অভিযোগে ২০২২ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশটিতে সামরিক অভিযান শুরু করে রুশ বাহিনী। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সেই অভিযানের নির্দেশ দিয়েছিলেন।

দু’পক্ষের যুদ্ধে গত দুই বছরে ইউক্রেনে নিহত হয়েছেন হাজার হাজার মানুষ। তবে এই যুদ্ধের শুরু থেকে রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যকার সমস্যাগুলো রাজনৈতিকভাবে সমাধানের পক্ষে বলে আসছে চীন এবং এ ইস্যুতে দেশটির অবস্থান অনড়। গত বছর একটি শান্তি প্রস্তাবও উত্থাপন করেছিল বেইজিং।

বেইজিংয়ের সেই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেছিলেন, রাজনৈতিক সংলাপের ভিত্তিতে যদি রাশিয়া-ইউক্রেন সংকটের সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হয়— সেক্ষেত্রে বেইজিংয়ের প্রস্তাবটি সেই উদ্যোগের ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে।

সর্বশেষ