সোমবার, মার্চ ৪, ২০২৪

তেজগাঁও ট্রাক স্ট্যান্ডে ইঁদুর-বিড়াল খেলা চলছে: মেয়র আতিক

তেজগাঁও অবৈধ ট্রাক স্ট্যান্ড নিয়ে ইঁদুর-বিড়াল খেলা চলছে। অভিযানে নামলে সড়ক ফাঁকা হয়ে যায়। আবার চলে গেলেই, হয় দখল।

বুধবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকালে তেজগাঁওয়ের আনিসুল হক সড়ক এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযানে এসে এসব কথা বলেন উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

মেয়র বলেন, রেললাইনের পরপরই লেগুনার স্টেশন করা হয়েছে। আমি আসার কারণে ট্রাকগুলো রাস্তা থেকে সরিয়ে ফেলেছে। যদিও অনেকে রাস্তা ওপর ট্রাক রেখে দিব্বি চলে গেছে। সত্যি কথা বলতে হয়, এ সড়কটি নিয়ে টম অ্যান্ড জেরি খেলা হচ্ছে। জাস্ট টম এন্ড জেরি। আমি আসলে চলে যাচ্ছে, পুলিশ আসলে চলে যাচ্ছে; পরে আবারও এসে রাস্তা দখল করছে, আবার চলে আসছে। এটা বাস্তব সত্য চিত্র।

সড়কটি দখলমুক্ত করতে প্রায়ই অভিযান চালানো হয় জানিয়ে মেয়র বলেন, এখানে আমরা প্রায়ই অভিযান চালাই। কিন্তু তার দুদিন পরই দখল হয়ে যায়। ট্রাকের মালিকরা বলছেন, জায়গা দেই না কেন? আমি বলেছি, আমি যেটা চাই, আগে সেটা করবেন। আমি চাই জনগণের কোনো যেন ভোগান্তি না থাকে। এর জন্য রাস্তার দুই পাশে কোনো ধরনের ট্রাক দাঁড়িয়ে থাকতে পারবে না।

তিনি আরও জানান, তেজগাঁও সাত রাস্তায় অবৈধ ট্রাক স্ট্যান্ড বন্ধে পাঁচ সদস্যের তদারকি টিম গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে মালিক সমিতির প্রতিনিধি থাকবে, ট্রাক শ্রমিক প্রতিনিধি থাকবে, পুলিশ থাকবে, কাউন্সিলর থাকবে, আরেকজন প্রতিনিধি থাকবে।

এসময়, এই সড়কে রিকশা চলাচলের জন্য আলাদা লেন করার ঘোষণা দেন তিনি। বলেন, আমরা আলাদা একটা লেন করেছি। যে লাইনটি শুধু রিকশার জন্য। আগে আমরা দেখতাম সড়কের ওপরে রাখা ট্রাকগুলো উত্তর-দক্ষিণে রাখা হতো। ফলে ট্রাকের পেছনটা ফুটপাত দখল করে রাখত। এখন আমরা যে পদ্ধতি করেছি ফুটপাতে ট্রাক রাখতে পারবে না। ফুটপাত দিয়ে জনগণ হাঁটতে পারবেন। জনগণ যেন নিরাপদে হাঁটতে পারেন তার জন্য আমরা এ পদ্ধতি নিয়েছি।

এই এলাকায় চাঁদাবাজির সাথে জনপ্রতিনিধি জড়িত থাকার ঘটনা দুঃখজনক বলেও মন্তব্য করেন উত্তরের মেয়র। তিনি বলেন, জনপ্রতিনিধি যদি কোনো চাঁদাবাজি করে তাহলে এর থেকে দুঃখজনক আর কিছু নেই। তারা যদি করে থাকে এটার প্রমাণ দিতে হবে। আপনি বলবেন, আরেকজন বলবে, পুলিশ চাঁদা খায়, আরেকজন বলবে মেয়র চাঁদা খান, সবাই চাঁদা খায়; এ রকম বললে হবে না, প্রমাণ দিতে হবে।

সর্বশেষ