ওয়াশিংটন ষড়যন্ত্র: নেতৃত্বে বাইডেনের উপদেষ্টা ওসমান সিদ্দিকী

327


দেশরিভিউ সংবাদ।।

ওসমান সিদ্দিকী। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডেমোক্রেটদের অত্যন্ত প্রভাবশালী একজন নীতিনির্ধারক। তার আরও একটি পরিচয় হলো তিনি সাবেক শিক্ষামন্ত্রী স্বাধীনতাবিরোধী ওসমান ফারুকের ভাই। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশবিরোধী একটি শক্ত লবি তৈরি হয়েছে মার্কিন প্রশাসনে। আর এই লবিকে অর্থ যোগাচ্ছে স্বাধীনতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী গোষ্ঠী। বর্তমানে তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের দক্ষিন এশিয়া বিষয়ক উপদেষ্টা হিসাবে কাজ করছেন। এরআগে তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে ফিজি সহ বেশ কয়েকটি দেশে রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। হিলারি ক্লিনটনের নির্বাচনী প্রচারণার অন্যতম উদ্যোক্তা ছিলেন। এখন তিনি বাইডেন প্রশাসনের একজন গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শক। পারিবারিক ভাবে ওসমান সিদ্দিকী স্বাধীনতাবিরোধী পরিবারের সন্তান। তার ভাই ওসমান ফারুক ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায় এলে শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তাঁর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ তদন্ত শুরু হলে ওসমান ফারুক পালিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যান এবং সেখানে তিনি বসবাস করছেন।

ওসমান সিদ্দিকী (ফাইল ফটো)

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ওসমান সিদ্দিকী শুরু থেকেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বিরোধী একজন ব্যক্তি হিসেবে কাজ করছেন এবং জো বাইডেন প্রশাসন ক্ষমতায় আসার পর তিনি প্রভাবশালী হয়ে ওঠেন এবং এই প্রভাবকে তিনি বাংলাদেশ বিরোধিতায় কাজে লাগান। জো বাইডেনের নেতৃত্বে ডেমোক্রেটরা ক্ষমতায় আসার পরপরই বাংলাদেশের বিরুদ্ধে একের পর এক ব্যবস্থা গ্রহণ করা শুরু হয়েছে। ওসমান সিদ্দিকীর কারণেই বাংলাদেশকে গণতন্ত্র সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি, ওসমান সিদ্দিকীর জন্যই ৭ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাকে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে ওসমান সিদ্দিকী একা নয়, দীর্ঘদিন ধরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মীর কাশেমের পুত্র ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক গং এবং স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তিদের একটি শক্ত খুঁটি তৈরি হয়েছে। এই খুঁটিটি মার্কিন প্রশাসনের ভিতরে নিবিড় ভাবে কাজ করছে। এই প্রশাসন প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধে নানা রকম অভিযোগ মার্কিন প্রশাসনের কাছে দিচ্ছে। যেহেতু এখন ওসমান সিদ্দিকী অত্যন্ত প্রভাবশালী ব্যক্তি হয়েছেন বাইডেন প্রশাসনে, সেজন্য তিনি এই অভিযোগগুলোকে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছেন এবং এই অভিযোগগুলোর প্রেক্ষিতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন।

ওসমান সিদ্দিকী ছাড়াও যারা সক্রিয়:

বাংলাদেশে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত উইলিয়াম বি মাইলাম, হোয়াইট হাউস করেস্পন্ডেন্ট মুশফিক ফজল এবং বিতর্কিত সাংবাদিক কনক সারোয়ার।

সাম্প্রতিক সময়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ বিরোধী মনোভাবের পেছনে যাদের হাত রয়েছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য তিনজনের এই ছবিটিই অনেক কথা বলছে। ওয়াশিংটন জাতীয় প্রেসক্লাবে তোলা হয়েছে এই ছবিটি। সেখানে দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত উইলিয়াম বি মাইলাম, হোয়াইট হাউস করেস্পন্ডেন্ট মুশফিক ফজল এবং বিতর্কিত সাংবাদিক যিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় আছেন সেই কনক সারোয়ার। এই তিনজন একত্রিত হওয়ার মধ্য দিয়ে সুস্পষ্ট একটি বার্তা দেয়া হচ্ছে। তাহলো, বাংলাদেশেবিরোধী ষড়যন্ত্র এখন দৃশ্যমান এবং ষড়যন্ত্রকারীরা সক্রিয়, তারা প্রতি মুহূর্তে যোগাযোগ রাখছে এবং আরো অনেক কিছুই তারা করতে চাইছে।
উইলিয়াম বি মাইলাম বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ছিলেন এবং বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত থাকার পর এখন তিনি বাংলাদেশ বিষয়ক বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করেন। তিনি আওয়ামী লীগ বিরোধী একজন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত। তার নিজস্ব লবিস্ট ফার্ম রয়েছে এবং সরকারের বিভিন্ন ইস্যুতে সমালোচনা করা এবং মার্কিন প্রশাসনের কাছে নালিশ করাই মাইলামের অন্যতম প্রধান কাজ এখন। তবে এই কাজটি তিনি বিনামূল্যে করেননা, অর্থের বিনিময়ে করেন। বিএনপি-জামায়াত গোষ্ঠী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যে লবিস্ট গ্রুপকে অর্থ দিচ্ছে আওয়ামী লীগ এবং সরকারবিরোধী প্রোপাগান্ডা করার জন্য সেই অর্থের ভাগ উইলিয়াম বি মাইলামও পান। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাপারে নেতিবাচক মন্তব্যের কারণে আলোচিত।
মুশফিক ফজল হোয়াইট হাউস করেস্পন্ডেন্ট হিসেবে কাজ করেন এবং সেখানে তার প্রধান কাজ হলো বাংলাদেশের যাই ঘটুক না কেন, নিয়মিত ব্রিফিংয়ে সেই প্রসঙ্গটি উত্থাপন করা। অর্থাৎ বাংলাদেশ সম্পর্কে নেতিবাচক বিষয়গুলো প্রশাসনের কানে তোলার ক্ষেত্রে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হলেন মুশফিক ফাজিল। আর কনক সারোয়ার সম্পর্কে নতুন করে বলার কিছু নেই। কনক সারোয়ার জামায়াত-বিএনপির অন্যতম পৃষ্ঠপোষক। তার ইউটিউব চ্যানেল চলে তারেক জিয়া এবং জামায়াতের অর্থায়নে। সম্প্রতি অর্থ না পেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে তিনি বিএনপির এক নেতার সাথে যে কথা বলেছিলেন সে কথার রেকর্ডও ভাইরাল হয়েছিল। আর প্রতিনিয়ত কনক সারোয়ারের কাজ হলো আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে নানারকম অসত্য, মিথ্যা, মনগড়া তথ্য পরিবেশন করা। এই তিনজন একসাথে মিলিত হয়ে এখন বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নতুন ষড়যন্ত্র করছেন।

তবে শুধু এরা নয়, এরকম আরো অন্তত ২০ জন ব্যক্তি সংঘবদ্ধভাবে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে কাজ করছে। মার্কিন মিডিয়া, মার্কিন প্রশাসন এবং কূটনৈতিক মহলে বাংলাদেশবিরোধী একটি সুস্পষ্ট তৎপরতা দৃশ্যমান। আর সেই তৎপরতার অংশ হিসেবেই ৭জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। শুধু তাই নয় এর পরপরই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাবেক প্রধান আজিজ আহমেদের ভিসাও বাতিল করেছে। এর আগে গণতন্ত্র সম্মেলনে বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ জানায়নি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এই ঘটনাগুলো সুস্পষ্টভাবে একটি রাজনৈতিক চাপ এবং সরকারকে দুর্বল করে ফেলার একটি কৌশল। আর সেই লক্ষ্যে যে তারা নিয়মিত কাজ করছেন সেটির প্রমাণ এই ছবিটি।

SHARE