কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনার নামে কলেজ ভর্তির ফাঁদ

205


নাহিম মোস্তাক, দেশরিভিউ।।
মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের আনন্দের রেশ কাটতে না কাটতেই শুরু হয়েছে বেসরকারি কলেজ গুলোর সংবর্ধনার ফাঁদ। জিপিএ ৫ প্রাপ্তদের মেধার স্বীকৃতির জন্য সংবর্ধনার নামে অনু্ষ্ঠানের আয়োজনও করা হচ্ছে। তবে এসকল অনুষ্ঠানের আড়ালে মূলত আছে ব্যবসায়িক মনোবৃত্তি। জানা গেছে, সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের দিন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সংশ্লিষ্ট কলেজে ভর্তির বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করতেই এ আয়োজন। এছাড়াও সংবর্ধনার রেজিষ্ট্রশন করতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের দেওয়া তথ্য চুরি করার অভিযোগও আছে অনেক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, সংবর্ধনা গ্রহনে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের রেজিষ্ট্রেশন করার ফাঁদ পেলে প্রতিষ্ঠানগুলো নাম, রোল, রেজিস্ট্রেশন, জন্ম তারিখ সহ বিস্তারিত তথ্য লিখে রাখছে। পরবর্তীতে
অনলাইনে কলেজ ভর্তি আবেদন শুরু হলে এসকল তথ্য দিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের অগোচরেই আবেদন করে দেয়। ফলে বাধ্য হয়ে শিক্ষার্থীরা অতিরিক্ত গলাকাটা বেতন, ফি দিয়ে কলেজ সমূহ পড়াশুনা করতে হয়।

এদিকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে এমন সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়েছে। এমনকি কয়েকটি প্রতিষ্ঠান সারাদেশ ব্যাপী এ সংবর্ধনার আয়োজন করছে। এমন একটি প্রতিষ্ঠানের নাম ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজ। প্রতিষ্ঠানটি বিএসবি ফাউন্ডেশনের ব্যানারে আগামী ০৮ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ, ০৯ জানুয়ারি চট্টগ্রামের ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে, ১০ জানুয়ারী রাজধানীর মোহাম্মদপুর, ১১ জানুয়ারি মিরপুর, ১২ জানুয়ারি উত্তরা এবং ১৩ জানুয়ারি যাত্রাবাড়ীতে সংবর্ধনার অনু্ষ্ঠান আয়োজন করেছে। এমনকি সংবর্ধনা গ্রহন করলে লোভনীয় ও চটকদার সুযোগ সুবিধা দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিচ্ছে ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজ।

সংবর্ধনার জন্য নিবন্ধন করেছেন জানিয়ে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থী মিনহাজ বিন নিজাম দেশরিভিউ’কে বলেন, ভাল রেজাল্ট করেছি। সেজন্য সম্মাননা দেওয়া হচ্ছে শুনে ক্যামব্রিয়ান কলেজের বিজ্ঞাপন দেখে রেজিষ্ট্রেশন করেছিলাম। রেজিষ্ট্রেশন করতে গিয়ে তারা যখন বিস্তারিত তথ্য নোট করে রাখে তখনি সন্দেহ হয়েছিল। পরে জানতে পেরেছি বিগত কয়েকবছর রোল, রেজিষ্টেশন নাম্বার সংগ্রহ করে তারা অনেকের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কলেজে পড়তে বাধ্য করেছে। তাই প্রথমে অনু্ষ্ঠানে যাওয়ার ইচ্ছা করলেও এখন আর যাচ্ছি না।

শিক্ষার্থীদের আবেগ ও সংবর্ধনাকে পুঁজি করে এমন অনৈতিক কর্মকান্ডকে কোনভাবেই চলতে দেওয়া যাবেনা বলে মনে করছেন শিক্ষাবিদরাও। ড. ইশতিয়াক নওয়াজ এ বিষয়ে দেশরিভিউকে বলেন, মেধাবীদের সম্মান জানাতে নয়, ব্যবসায়িক মনোবৃত্তি থেকেই এ সংবর্ধনা দেওয়া হচ্ছে। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানের প্রচারণা চালিয়ে ভর্তি করানোই উদ্দেশ্য। তিনি বলেন, ব্যাঙের ছাতার মতো যত্রতত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠা, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরদারি এবং সুনির্দিষ্ট নীতিমালা না থাকায় এ ধরণের শিক্ষা-বাণিজ্য প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে।

SHARE