চট্টগ্রামে অভিনব কায়দায় চলন্ত অটোরিক্সায় ছিনতাই

43

বন্দরনগরী চট্টগ্রামে চলন্ত অটোরিক্সায় অভিনব কায়দায় যাত্রীদের সর্বস্ব কেড়ে নিচ্ছে ছিনতাইকারীরা। সম্প্রতি নগরীর বিভিন্ন এলাকায় সক্রিয় এমন কয়েকটি গ্রুপ। অধিকাংশ ক্ষেত্রে ছিনতাইকাজে সরাসরি জড়িত থাকে খোদ অটোরিক্সা চালক।

ছিনতাইয়ের এমন এক ঘটনা ঘটেছে গত ১৭ নভেম্বর সকাল ১০ টায় নগরীর আগ্রাবাদ এক্সেস রোডে। হালিশহর থেকে আগ্রাবাদ যাবার সময় ছিনতাইয়ের শিকার হন বেসরকারি চাকরিজীবী আফসার উদ্দিন। সব ছিনতাইয়ের পর, একটি নির্জনস্থানে ধাক্কা দিয়ে গাড়ি থেকে ফেলে দেয়া হয় তাকে।

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, গন্তব্যের মাঝপথে চাকা বিকল হওয়ার কথা বলে অটোরিক্সা থামান চালক। সে সুযোগে অটোরিক্সায় ঢুকে পড়ে তিন ছিনতাইকারী। এরপরই ঘুরতে থাকে চাকা। চলন্ত গাড়িতেই যাত্রীর সব মালামাল লুটে নেয় দুর্বৃত্তরা।

ওইদিন দুপুর বারোটায় একি কায়দায় ছিনতাইয়ে শিকার হন শিপিং কর্মকর্তা আব্দুর রহিম তাসনিম। হালিশহর থেকে পতেঙ্গা যাওয়ার পথে পোর্ট কলোনীর মুখে কেড়ে নেয়া হয় তার সবকিছু।

সম্প্রতি বন্দর নগরীতে এভাবে দিনের বেলায় চলন্ত অটোরিক্সায় ছিনতাইয়ের ঘটনা বেড়েছে। এমন অপরাধে সরাসরি জড়িত থাকে অটোরিক্সা চালকরাও। তাই নগরীতে সক্রিয় এসব ছিনতাইকারীকে ধরার পাশাপাশি চালকদের একটি ডাটাবেজ তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিএমপি।

সিএমপি পশ্চিম বিভাগের উপ পুলিশ কমিশনার আব্দুল ওয়ারিশ বলেন, দ্রুত ছিনতাইকারীদের আইনের আওতায় আনার পাশাপাশি সিএনজি অটোরিক্সা কেন্দ্রিক অপরাধ ঠেকাতে চালকদের ডাটাবেজ তৈরির করার প্রক্রিয়া চলছে।

চট্টগ্রামে চলন্ত অটোরিক্সায় ছিনতাই কাজে সক্রিয় বেশ কয়েকটি গ্রুপ। যাদের অনেকে দীর্ঘদিন কারাগারে থাকলেও সম্প্রতি কয়েকজন জামিনে মুক্তি পেয়ে আবারো জড়িয়েছে ছিনতাইয়ে।

SHARE