বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০২৪

স্থানীয় সরকারে রঙিন পোস্টারে ফিরছে নির্বাচন

স্থানীয় সরকারের ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট-গ্রহণ হবে চার ধাপে। প্রথম ধাপে আগামী ৪ মে ভোট-গ্রহণ করা হবে। এরপর ১১, ১৮ ও ২৫ মে দেশের ৪৮১টি উপজেলা পরিষদের ভোট-গ্রহণ করবে ইসি। দেশে ৪৯৫টি উপজেলা রয়েছে। অবশিষ্টগুলোতে পরবর্তীতে ভোট-গ্রহণ করা হবে।

এবার উপজেলা ভোটকে সামনে রেখে নির্বাচন পরিচালনা বিধিমালা ও আচরণ বিধিমালার সংশোধন করছে কাজী হাবিবুল আউয়াল নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন (ইসি)। বিধিমালা সংশোধনে আউয়াল কমিশনের প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়।

আইন মন্ত্রণালয় থেকে গতকাল বুধবার (১৩ মার্চ) ভেটিং হয়ে প্রস্তাবগুলো নির্বাচন কমিশনে এসেছে বলে জানিয়েছেন ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ।

তিনি জানান, ইসি থেকে পাঠানো সবগুলো প্রস্তাব ভেটিং হয়ে এসেছে। এখন সেগুলো আমরা আবার দেখে মন্ত্রণালয়ে পাঠাব। তারপর প্রজ্ঞাপন জারি হবে।

এর আগে, উপজেলা নির্বাচন বিধিমালা সংশোধনী আনতে আইন ও বিধিমালা সংস্কার কমিটি গঠন করে ইসি। কমিটির সভাপতি করা হয়েছিল নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানাকে। সেই সময় কমিটি দুই দফা বৈঠকে একটি খসড়া তালিকা প্রস্তুত করে। পরবর্তীতে কমিশন সভায় নির্বাচন পরিচালনা ও আচরণ বিধিমালা সংশোধন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়ে আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। মন্ত্রণালয় পরবর্তীতে বিধিমালাগুলো পর্যালোচনা করে অনুমোদন দেয়।

যে বিধিমালাগুলো সংশোধন করা হলো, ১. পোস্টার, ব্যানার সাদা-কালো অথবা রঙিন করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ২. প্রতীক বরাদ্দের আগে জনসংযোগ এবং ডিজিটাল মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণার প্রস্তাব করা হয়। ৩. পাঁচজনের বেশি কর্মী বা সমর্থককে নিয়ে জনসংযোগ করা যাবে না। ৪. প্রতি ইউনিয়নে একটি এবং পৌরসভার প্রতি তিনটি ওয়ার্ডে একটির বেশি নির্বাচনী ক্যাম্প বা অফিস স্থাপন করা যাবে না। ৫. নির্বাচনী ক্যাম্প বা অফিসের আয়তন ৬০০ বর্গফুটের বেশি হতে পারবে না। ৬. নির্বাচনী প্রচারণায় একটির বেশি শব্দ যন্ত্র (হর্ন) বা জনসভায় চারটির বেশি শব্দযন্ত্র (হর্ন) ব্যবহার করা যাবে না। ৭. শব্দ দূষণ প্রতিরোধে শব্দ বর্ধনকারী যন্ত্রের শব্দের মান মাত্রা ৬০ ডেসিবলের বেশি হতে পারবে না। ৮. প্রচারণায় পোস্টার বা ব্যানারে পলিথিনের ব্যবহার না করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ৯. স্বতন্ত্র প্রার্থীর ক্ষেত্রে ভোটারের সমর্থনযুক্ত তালিকা দাখিলের বিধান বিলুপ্ত করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

১০. অনলাইনে মনোনয়নপত্র দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ১১. চেয়ারম্যানের ক্ষেত্রে জামানত এক লাখ টাকা, ভাইস চেয়ারম্যানের ক্ষেত্রে ৭৫ হাজার টাকা এবং নারী সদস্যের ক্ষেত্রে পাঁচ হাজার টাকার প্রস্তাব করা হয়েছে। ১২. সমভোটের ক্ষেত্রে লটারির মাধ্যমে ফলাফল নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়। ১৩. প্রদত্ত ভোটের শতকরা ১৫ ভাগ অপেক্ষা কম ভোট পেলে জামানত বাজেয়াপ্তের প্রস্তাব করা হয়েছে। ১৪. চেয়ারম্যান এবং ভাইস চেয়ারম্যানের নির্বাচনী ব্যয় ২৫ লাখ টাকা এবং নারী সদস্যদের এক লাখ টাকার প্রস্তাব করা হয়েছে। ১৫. মনোনয়নপত্রে লিঙ্গ হিসেবে হিজড়াদের অন্তর্ভুক্তির প্রস্তাব করা হয়। ১৬. নির্বাচনের ফলাফল স্থগিত ও পুনরায় ভোটগ্রহণে কমিশনের ক্ষমতার বিষয়ে প্রস্তাব করা হয়েছে। ১৭. মনিটরিং কমিটি গঠনের প্রস্তাব করা হয়েছে। ১৮. নতুন রাজনৈতিক দল নিবন্ধিত হওয়ায় প্রতীক অন্তর্ভুক্তি বা সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে।

সর্বশেষ