জিয়ার মতো একজন খুনীর নামে চট্টগ্রামে কোন জাদুঘর হতে পারে না : শিক্ষা উপমন্ত্রী

194

দেশরিভিউ , চট্টগ্রাম :

চট্টগ্রাম নগরের স্টেডিয়াম সংলগ্ন বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের স্মৃতি বিজড়িত জাদুঘরের নাম পরিবর্তন করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। নতুন নাম হবে ‘মহান মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর’। তৎকালীন এ সার্কিট হাউসেই বিপৎগামী সেনা সদস্যদের গুলিতে নিহত হন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান।

শুক্রবার বিকালে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে পালস অক্সিমিটার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ড এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে নওফেল বলেন, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাঙালি জাতির গর্ব। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বীর মুক্তিযোদ্ধারা জীবনবাজি রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছেন বলেই স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ পেয়েছি। দেশ স্বাধীন হওয়ার পেছনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান চির স্মরণীয়। তাদের সুরক্ষা প্রয়োজন। বীর মুক্তিযোদ্ধারা বেঁচে না থাকলে আমাদের নতুন প্রজন্ম মহান মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানবে না।’

তিনি বলেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস মুছে ফেলার উদ্দেশ্যে স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধু হত্যা পরবর্তী খুনি জিয়া-মোশতাকের নেতৃত্বে সামরিক বাহিনী, সিভিল সার্ভিস ও অন্যান্য স্থানে বেছে বেছে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যা করা হয়েছে। তারা সত্যিকারার্থে স্বাধীনতা চায়নি। মহান মুক্তিযুদ্ধের আদর্শকে হত্যা করেছে। বিএনপি-জামায়াত জোট যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাধাগ্রস্ত করতে গিয়ে সরকারের কঠিন হস্তক্ষেপের কারণে ব্যর্থ হয়েছে। এসব ইতিহাস নতুন প্রজন্মকে জানাতে হবে। চট্টগ্রামে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত জাদুঘর খুনি জিয়ার নামে কিছুতেই হতে পারে না। এটির নাম সংশোধন করে ‘মহান মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর’ নামকরণের জন্য সরকার ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে।’

এর আগে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে সংসদে চট্টগ্রামের পুরোনো সার্কিট হাউজে জিয়া স্মৃতি জাদুঘরের নাম পরিবর্তন করে ‘মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর’ করার দাবি জানিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং সাবেক গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।

তখন মোশাররফ বলেছেন, চট্টগ্রামের এই পুরোনো সার্কিট হাউজকে জিয়া স্মৃতি জাদুঘর করা অত্যন্ত লজ্জার ব্যাপার ছিল। আমি এই সার্কিট হাউজটিকে জিয়া স্মৃতি জাদুঘরের পরিবর্তে ‘চট্টগ্রাম মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর’ নামে করার প্রস্তাব করছি।

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর আহমদ শুক্রবারের অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। সঞ্চালক ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. ওমর ফারুক রাসেল ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মো. সরওয়ার আলম চৌধুরী মনি। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীন আখতার।

বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদুল হক চৌধুরী সৈয়দ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সহকারী কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রাজ্জাক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীমা হারুন লুবনা ও চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা ডা. বিদ্যুৎ বড়ুয়া।

বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মো. সরওয়ার আলম চৌধুরী মনি, চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির আহ্বায়ক সাহেদ মুরাদ সাকু ও সদস্য সচিব কাজী মুহাম্মদ রাজীশ ইমরান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নেতা, বিভিন্ন থানা কমান্ডের নেতা, সর্বস্তরের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

SHARE