তারেক রহমানের ক্যাসিনো ছবি ফাঁস, লন্ডন বিএনপিতে হুলস্থুল

440


দেশরিভিউ সংবাদ।।

লন্ডনের এক ক্যাসিনোতে জুয়ায় মত্ত তারেকের ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। আর এ ঘটনায় অস্বস্তিতে পড়েছে বিএনপির সিনিয়র নেতারা।

লন্ডন বিএনপি সূত্রে জানা যায়, তারেকের উদ্দাম জীবন নিয়ে দীর্ঘদিন থেকেই বিরক্ত তারা। তারেককে টাকার জোগান দিতে ব্যর্থ হওয়ায় অনেক বর্ষীয়ান নেতাকেও রাজনীতি ছাড়তে হয়েছে। এসব ক্ষোভ এবং দলীয় নেতাকর্মীদের কানাঘুষার মাধ্যমে ধীরে ধীরে বাঙালি কমিউনিটিতে ওপেনসিক্রেট হয়ে পড়ে তারেকের নৈশ জীবনের কথা। তবে সম্প্রতি সমস্যা আরো জটিল হয়ে উঠেছে। কারণ দলীয় পদ ও মনোনয়নের টাকা কোন খাতে খরচ করা হচ্ছে, তা জানতে চেয়েছেন খালেদা জিয়া। কিন্তু এ ব্যাপারে কথা বলতে নারাজ তারেক।

এমনকি করোনাকালের দেড় বছরেও সাধারণ মানুষ এবং দলীয় কর্মীদের জন্যেও এক পয়সা খরচ করেনি বিএনপি। উল্টো দেশ থেকে কোটি কোটি টাকার ফান্ড সংগ্রহ করে লন্ডনে লাক্সারি জীবনযাপন করেছে দুর্নীতিবাজ তারেক। লন্ডনের বাঙালিপাড়ায় ছড়িয়ে পড়া এসব তথ্য যাচাই করার জন্য কিছুদিন আগে কাজ শুরু করে লন্ডনে অবস্থানরত অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের একটি দল। আর এতেই উঠে আসে তারেকের কোটি কোটি টাকা খরচের আসল চিত্র।

প্রতিটি নির্বাচনের আগে তারেক রহমানকে যতো টাকা দেয় বাংলাদেশের বিএনপি নেতারা, সেই টাকা যাচ্ছে কোথায়? এটি নিয়ে তাদেরও প্রশ্ন দীর্ঘদিনের। সেই টাকা খরচের উৎস খুঁজতে গত কয়েক মাস ধরে চেষ্টা চলছিল। অবশেষে গত আগস্টের শুরুতে দুর্নীতিবাজ তারেক রহমানের এক বিশেষ হ্যান্ডলারের খোঁজ পায় সাংবাদিকদের আন্ডারকাভার টিম। একাধিকবার ব্যর্থ হওয়ার পর, তারেকের সেই বিশেষ হ্যান্ডলারকে হানি ট্র্যাপে ফেলতেও সক্ষম হয় তারা। তারপর সেই হ্যান্ডলার ও হানি ট্রাপের মাধ্যমেই গোপনে মোবাইল ক্যামেরায় ধারণ করা হয় তারেকের জুয়ার আড্ডার কিছু ছবি ও ভিডিও।

উল্লেখ্য, সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি লন্ডনের অভিজাত এক ক্যাসিনো ও ডান্সক্লাব থেকে তোলা হয় এই ছবিগুলো। আমাদের সোর্স নিরাপদে লন্ডন ত্যাগের পর আমরা ছবিগুলো প্রকাশ করলাম।

লন্ডনের কয়েকজন বিএনপি নেতাকে এসব তথ্য-প্রমাণ দেখানোর পর সহাস্যে বিষয়টি স্বীকার করেন তারা। তবে নাম প্রকাশ করতে রাজি হননি কেউ। তারা বলেন, ‘সপ্তাহে তিন-চার দিন রাতভর ক্লাবে থাকে তারেক রহমান। সেখানে জুয়া খেলে সময় কাটায়। তারেক মিডিয়ায় দাবি করে যে- সে ক্যাসিনো খেলে টাকা উপার্জন করে এবং সেই টাকায় লন্ডনে বসবাস করে, কিন্তু এটা সত্য নয়। জুয়ার বোর্ডে বাংলাদেশের টাকায় মাসে প্রায় দেড় থেকে দুই কোটি টাকা হারে সে। তবে তার টাকা আছে, টাকা নিয়ে সে চিন্তিত নয়।’

SHARE