‘বইয়ের’ সেই দুর্দান্ত দাপট নেই আজিজ মার্কেটে

238

আজিজ সুপার মার্কেট বাংলাদেশের ঢাকা শহরে অবিস্থত একটি মাইলফলক স্থাপনা যা প্রধানত একটি বইয়ের বাজার হিসাবেই প্রসিদ্ধ। ঢাকা শহরের প্রাণকেন্দ্র শাহবাগ চৌরাস্তা সংলগ্ন এলিফ্যাণ্ট রোডে এর অবস্থান। ১৯৮০-র দশকের মধ্যভাগ থেকেই আজিজ সুপার মার্কেট সাহিত্যপ্রেমী ও তরুণ কবিদের-লেখকদের প্রাত্যহিক তীর্থে পরিণত হয়। এখনো এটি সান্ধ্য আড্ডার জনপ্রিয় কেন্দ্র।

দেশী-বিদেশী বইয়ের দোকানগুলোকে কেন্দ্র করেই এই আড্ডার সূত্রপাত। বইয়ের দোকানের পাশাপাশি অনেক রেস্তরাঁ গড়ে ওঠায় আড্ডার আবহ জোরদার হয়।

শুরুটা ১৯৮৭ সালে। পাঠক সমাবেশ নামে একটি ছোট দোকান দিয়েই বই প্রবেশ করেছিল শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটে। ধীরে ধীরে দোকান বৃদ্ধির মধ্য দিয়ে বই মার্কেট হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠে আজিজ সুপার মার্কেট। নব্বই দশকের মাঝামাঝি এ মার্কেটের নিচতলার প্রায় পুরোটা জুড়েই বইয়ের ছোট ছোট দোকান স্থাপিত হয়। কয়েক বছরের মধ্যেই ৬০টির অধিক বইয়ের দোকান গড়ে ওঠে এই মার্কেটে। দেশি-বিদেশি বইয়ের বিশাল সংগ্রহ আকৃষ্ট করে পাঠকগোষ্ঠীকে।

ঢাকা শহরের প্রাণকেন্দ্রে, জাতীয় জাদুঘরের পাশে অবস্থিত এ মার্কেট। নব্বই দশকের মধ্যভাগ থেকেই আজিজ সুপার লেখক, সাহিত্যিক ও প্রকাশকদের মিলনমেলায় পরিণত হয়। বইয়ের দোকানগুলোকে কেন্দ্র করেই গড়ে ওঠে আড্ডা। দু-একটা রেস্তোরাঁ গড়ে ওঠায় এই আড্ডা হয়ে ওঠে আরো জমজমাট। সন্ধ্যা হলেই বইপ্রেমী মানুষ, লেখক ও পাঠক ছুটে আসেন এখানে বইয়ের গন্ধে; সঙ্গে চলে চায়ের কাপে চুমুক।

আজিজ সুপার মার্কেট শাহবাগ এ ,জাতীয় জাদুঘরের পাশে অবস্থিত। এটি একটি চৌদ্দ তলা ভবন।ভবনের প্রথম তিন তলা ও আন্ডারগ্রাউন্ড মার্কেট এবং বাকি অংশ আবাসিক ভবন।আজিজ সুপার মার্কেট_ বই, কাগজ ও কালির গণ্ধে যেই পাড়াটা থাকত সবসময় মুখর, এখন সেখানেই পাওয়া যায় কাপড় আর রঙের গণ্ধ। ঢাকার সায়েন্স ল্যাবরেটরি থেকে এলিফ্যান্ট রোড দিয়ে শাহবাগ আসতেই হাতের বাঁ দিকে তাকালে চোখে পড়বে ‘আজিজ সুপার মার্কেট’। কোনো ঝকঝকে, তকতকে, শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অত্যাধুনিক কোনো ‘প্লাজা’ নয়। অতি সাধারণ, সাদামাটা একটি মার্কেট। কখনোই চুনকাম হয়নি। ভালো লিফট নেই, পার্কিং নেই, সিঁড়ির অবস্থা করুণ, ভালো একটা রেস্টুরেন্ট নেই, কারেন্ট চলে গেলে পুরো মার্কেট অন্ধকারে ডুবে ভুতুড়ে বাড়িতে পরিণত হয়। যারা বাসাবাড়ি নিয়ে মার্কেটের ওপরে থাকেন, তাদের তো ভোগান্তির শেষ নেই। তারপরও আজিজ সুপার মার্কেটের কোনো বিকল্প নেই।

তবে এই শতকের শুরু থেকে একটু একটু করে বদলে যেতে শুরু করে আজিজ মার্কেটের চিত্র। বইয়ের দোকান না বেড়ে বাড়তে থাকে রেস্তোরাঁ আর পোশাকের দোকান। বইয়ের ব্যবসা সরিয়ে রেখে পোশাক নিয়ে ব্যস্ত হয়ে ওঠেন অনেক প্রকাশনী সংস্থার মালিক। জামাকাপড়ের দোকান থেকে ভাড়া বেশি পাওয়ায় কোণঠাসা হয়ে পড়ে কম ভাড়ার বইয়ের দোকানগুলো। ক্রমাগতই বেশি ভাড়ার সঙ্গে পাল্লা দিতে হয় বইয়ের দোকানের। অথচ বই তেমন বিক্রি হয় না, যেমনটা হয় জামাকাপড়। তাই পোশাকের দাপট সহ্য করতে না পেরে অনেকেই দোকান ছেড়ে চলে যান অন্য কোনো মার্কেটে। বইয়ের দোকানসংখ্যা ৬০ থেকে ধীরে ধীরে নেমে আসে ২০-এর ঘরে।

গত কয়েক বছরে আজিজ সুপার মার্কেট পোশাকের জন্য তরুণ-তরুণীর সবচেয়ে পছন্দের স্থান হয়ে উঠেছে। বইয়ের দোকানিদের আক্ষেপ, মানুষ যে হারে কাপড় কেনে, সেটার অর্ধেকও যদি বই কেনা হতো, তাহলে জাতি আরো শিক্ষিত হতো। এই মার্কেটে অবশ্য অন্য রকম কিছু বইয়ের দোকান রয়েছে, যেগুলো চিকিৎসাশাস্ত্র ও প্রকৌশলবিদ্যার মতো বিভিন্ন উচ্চতর শিক্ষার জন্য ব্যবহৃত বইয়ের নকল বিক্রি করে। সৃজনশীল বইয়ের দোকানগুলোর তুলনায় এসব দোকানের বিক্রি অবশ্য মন্দ নয়।

আজিজ মার্কেটের এই বিবর্তনকে অনেকে দেখেন আধুনিকায়ন হিসেবে! অবশ্যই দেশীয় পোশাক নিয়ে আজিজ মার্কেটে যে আয়োজন রয়েছে তা প্রশংসার দাবিদার। তবে নতুন বইয়ের ঘ্রাণের সঙ্গে কি আর কিছুর তুলনা হয়?

দেশরিভিউ/তারেক

SHARE