বাংলাদেশের টিকা নিবন্ধনের অ্যাপে ১০ দেশ থেকে সাইবার হামলা

99


করোনাভাইরাস প্রতিরোধে টিকা গ্রহণের ডিজিটাল নিবন্ধন ব্যবস্থা ‘সুরক্ষা’ অ্যাপ ও ওয়েব পোর্টালে সাইবার হামলা চালানো হয়েছে। সম্প্রতি অন্তত ১০টি দেশে থেকে একযোগে হামলা করা হয়েছে সুরক্ষা অ্যাপে। এই হামলাকে ‘ডিনাইয়াল অব সার্ভিস অ্যাটাক’ বা সেবা বাধাদানে আক্রমণ বলা হচ্ছে। এ কারণে টিকার রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়ায় কিছুটা বিঘ্ন হয়। তবে বাংলাদেশি দক্ষ বিশেষজ্ঞ দল বিদেশিদের সেই হামলা রুখে দিতে সক্ষম হয়।

বাংলাদেশি দক্ষ বিশেষজ্ঞরা হামলা রুখতে পারায় ‘সুরক্ষা’ অ্যাপে রেজিস্ট্রেশন করা তিন কোটির বেশি নাগরিকের তথ্য নিতে ব্যর্থ হয় হ্যাকাররা। পরে জিও ফেন্সিং (ভূ-বেড়া) চালুসহ অন্যান্য কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে আগের থেকে আরও সুরক্ষিত করা হয়েছে ‘সুরক্ষা’ রেজিস্ট্রেশন সেবাকে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, ‘সুরক্ষা’ অ্যাপ চালু করার পর থেকেই বেশ কয়েক দফায় হামলা করা হয়েছে অ্যাপটিতে। সিস্টেম হ্যাক এবং ক্ষমতার থেকে বেশি হিটের মাধ্যমে নিবন্ধন ব্যবস্থা অকার্যকরের চেষ্টা করা হয়। গত ১২ ও ১৩ আগস্ট সবচেয়ে বড় আক্রমণটি করা হয়। তখন অ্যাপের ক্ষমতার থেকে কয়েকগুণ বেশি হিট করা হয়। এসবের বেশিরভাগই করা হয় রাত ১০টা থেকে ১২টার মধ্যে।

আইসিটি বিভাগ আরও জানায়, ৪৮ ঘণ্টায় ১০টি দেশ থেকে মোট ৬ কোটি ১৬ লাখ ৭৪ হাজার ৬৯৭টি হিট এবং ১৪ আগস্ট ফের ৩ কোটি ৩২ লাখ ৯৯ হাজার ১৩৫ বার হিট আসে। বাংলাদেশসহ হাঙ্গেরি, জাপান, যুক্তরাষ্ট্র, চীন, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য, মালয়েশিয়া, ভারত ও ফিলিপাইন দেশের হ্যাকাররা হিট করে অ্যাপটিতে। তবে পরে জিও ফেন্সিং চালু হলে উল্লেখযোগ্য হারে হিট কমে যায়।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) পরিচালক (সিএ অপারেশন ও নিরাপত্তা) তারেক এম বরকতউল্লাহ ‘সুরক্ষা’ সেবায় সাইবার আক্রমণের বিষয়ে বলেন, গণটিকার ক্যাম্পেইনের সময় আক্রমণ শুরু হয়। সেই সময় আমাদের সক্ষমতার থেকে বেশি হিট এসেছিল। এতে আমাদের ব্যবহারকারীরা সিস্টেমটি ধীর গতি পাচ্ছিলেন এবং এসএমএস আসতে সময় লেগেছিল। তবে হ্যাকাররা আমাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভেদ করতে ব্যর্থ হয়েছে। আমরাও বিষয়টি সমাধান করেছি। হিটের সক্ষমতা প্রতি সেকেন্ডে ৫০ হাজার থেকে বৃদ্ধি করে তা ১ লাখ করা হয়েছে। সেই সঙ্গে জিও ফেন্সিং-এর মাধ্যমে দেশের বাইরে থেকে আসা অস্বাভাবিক হিট বন্ধ করা হয়েছে।

SHARE