বাবাকে লেখা শেষ চিঠি ‘একবার আমি তোমাকে ড্যাড বলে ডাকতে চাই’

258

 


চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র চট্টলবীর এবিএম মহিউদ্দীন চৌধুরী এক-এগারো সরকারের সময় গ্রেফতার ছিলেন।
তিনি কারাগারে থাকাকালীন সময়ে তার ক্যান্সারে আক্রান্ত মেয়ে ফৌজিয়া সুলতানা টুম্পা বাবার কাছে লিখেছিলেন একটি চিঠি। ২০০৮ সালের ১৭ অক্টোবর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা যান। আজ টুম্পার ১৩তম মৃত্যুবার্ষিকী।

মৃত্যুর আগে টুম্পা বাবাকে লিখেছিলেন একটি চিঠি ‘প্রিয় বাবা, আমি কখনো তোমাকে বলতে পারিনি, তুমি আমার কাছে কী! তোমার কাছে কোনো দিন মনের অনুভূতি প্রকাশ করতে পারিনি। শুধু এটুকু বলতে পারি, যখন এ চিঠি লিখছি, আমার চোখ ছাপিয়ে পানি নামছে। আমি তো কখনো তোমাকে বলতে পারিনি তুমি শ্রেষ্ঠ বাবা, তুমি আমার আদর্শ।’ ‘আব্বু, তোমাকে কি একটা প্রশ্ন করতে পারি? তুমি তো আল্লাহকে বিশ্বাস করো। একজন ভালো মানুষের সব গুণ তোমার মধ্যে আছে। তোমার ঈশ্বর কি সেটা দেখছেন না? তিনি কি দেখছেন না তুমি কী কষ্ট পাচ্ছ? এত কিছুর পর আমি কি আল্লাহর ওপর আস্থা রাখব? কিন্তু আমি রাখছি।
‘সেই সকালবেলাগুলো আজ খুব মিস করছি, যখন তুমি খুব ভোরবেলা উঠে ছড়া আবৃত্তি করতে…। আব্বু, তোমাকে আজ হাজারবার ডাকতে ইচ্ছা করছে…চিৎকার করে তোমাকে ডাকতে ইচ্ছা করছে।’ তোমার শূন্যতা খুব বেশি অনুভব করছি। সকালে জেগে ওঠার জন্য এখন আর কেউ বকাবকি করে না। বাড়ির যে গাছগুলোতে রোজ পানি ছিটিয়ে সজীব করে রাখতে তুমি, তারাও এখন খুব বিষণ্ন, নির্জীব। ট্রাফিক সিগনালে লালবাতি জ্বলে উঠলে যে ভিখারীটি গাড়ির কাচের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকে, সেও তোমার বেশ অভাববোধ করছে। আমি, আমরা সবাই তোমার অপেক্ষায় দিন গুনছি। বাবা, আমি তোমাকে অনেক ভালবাসি। তুমি ফিরে এসো বাবা। একবার আমি তোমাকে ড্যাড বলে ডাকতে চাই।
‘লবণাক্ত অশ্রুর বিন্দু ছাড়া আমি আর তোমাকে কী দিতে পারি? যে কাগজটাতে লিখছি, সেটা আমি আর দেখতে পাচ্ছি না। আমার চোখের পানিতে কাগজটা ভিজে যাচ্ছে।’
‘তুমি আমার হৃদয়ের সবচেয়ে গভীরতম স্থানটিতে আছ, চিরকাল সেখানেই তুমি থাকবে।
—তোমার টুম্পা।

উল্লেখ্য প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্রী ছিলেন টুম্পা। ২০০৮ সালের ১৭ অক্টোবর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা যান। টুম্পা তার মৃত্যুর আগে পিতার সঙ্গে শেষ দেখা করতে পারেনি। সেদিন সেনা সমর্থিত তৎকালিন তত্ত্বাবধায়ক সরকার তার পুরো পরিবারের উপর নির্দয় আচরন করেছিলেন। টুম্পাকে দেখার জন্য এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীকে প্যারোলে মুক্তি দেওয়া হয়নি। বরং এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীকে শর্ত দেওয়া হয়েছিলো রাজনীতি থেকে নির্বাসনে যাওয়ার মুচলেকা দিলেই কেবল মুক্তি সম্ভব। কিন্তু তৎকালিন সরকারকে মুচলেকা দিয়ে মহিউদ্দিন চৌধুরী মুক্তি নিতে রাজি ছিলেন না।
পরবর্তীতে দীর্ঘ আইনী লড়াইয়ে তিনি মুক্তি পেয়েছিলেন। কিন্তু অসুস্থ মেয়েকে ব্যাংককে দেখতে যেতে সরকার আবারো তালবাহানা করে যাত্রা বিলম্বিত করেছিল। শেষ পর্যন্ত চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বসেই তিনি টুম্পার মৃত্যু সংবাদ পান। আজ তার মৃত্যুবার্ষিকীতে আমাদের অকৃত্তিম শ্রদ্ধা আর ভালবাসা।

SHARE