মাহমুদউল্লাহ-তাসকিনের ব্যাটিং নৈপুন্যে বাংলাদেশের বিশাল সংগ্রহ

69


দেশরিভিউ সংবাদ।।
বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত থামল ৪৬৮ রানে গিয়ে! লিটন দাসকে নিয়ে ধস ঠেকানোর পর তাসকিন আহমেদকে নিয়ে রেকর্ড গড়া জুটি গড়লেন ১৭ মাস পর টেস্ট দলে ফেরা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। হারারে টেস্টে বাংলাদেশ এখন বেশ শক্ত অবস্থানেই।

প্রথম দিনের প্রথম দুটি সেশন বাংলাদেশের জন্য কেটেছে দুঃপ্নের মতো। তবে শেষ সেশনে লিটন দাসের সঙ্গে দুর্দান্ত একটা জুটি গড়ে দলকে ভালো একটা অবস্থানে নিয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ। লিটন কাল শেষ বিকেলে ৯৫ রানে ফিরে যাওয়ার পর ৮ উইকেটে ২৯৪ রান নিয়ে প্রথম দিন শেষ করে বাংলাদেশ।
মাহমুদউল্লাহ অপরাজিত ছিলেন ৫৪ রানে, তাসকিন ১৩ রানে। শেষ দিকের ব্যাটার ক্রিজে ছিল বলে আজ দিনের শুরু থেকেই দ্রুত রান তোলার চেস্টা করেছেন মাহমুদউল্লাহ। ওভারের শেষ দিকে সিঙ্গেল নিয়ে স্ট্রাইক ধরে রাখতে চেয়েছেন। কিন্তু দিনের শুরু থেকেই তাসকিন আহমেদ বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন তিনি শুধু সঙ্গ দেওয়ার জন্যই উইকেটে নেই, দলকে রান এনে দিতেও এসেছেন। জায়গায় বল পেলেই ঝানু ব্যাটারের মতো শট খেলেছেন তরুণ পেসার।

মাঝখানে ব্লেসিং মুজারাবানি একটু তাঁতিয়েও দিলেন তাসকিনকে। ৮৬তম ওভার মুজারাবানির অফস্টাম্পের বাইরের বলটা ছেড়ে দিয়ে একটু নেচে নিতে চাইলেন তাসকিন। ভাবখানা এমন যে, আউট করা এতো সহজ নয়! জিম্বাবুয়ান পেসারের হয়তো নাচ পছন্দ হলো না। তেড়ে গেলেন তাসকিনের দিকে, তাসকিনও এগিয়ে এলেন। মুখোমুখি দুজনের তর্ক দেখা গেল কিছুক্ষণ। ৮৮তম ওভারে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে লেগে গেলেন আবার ভিক্টোর নিয়াউচি।

প্রস্তুত ছিলেন না মাহমুদউল্লাহ, নিয়াউচি বল ছোড়ার আগেই ক্রিজ ছেড়ে বেড়িয়ে গিয়েছিলেন। নিয়াউচি বিষয়টা সহজভাবে নেয়নি, বল ছুড়ে দিলেন উইকেটের দিকে। পরেরবার নিয়াউচি স্ট্রাইডে গেলেন ঠিকই কিন্তু বল ছুড়লেন না। মেজাজটা যেন ধরে গেল মাহমুদউল্লাহর। দুকদম হেঁটে নিয়াউচিকে কিছু একটা বলতে লাগলেন। পরে আম্পায়ার এসে থামিয়েছেন দুজনকে। এসব যেন তাঁতিয়ে দিয়েছিল মাহমুদউল্লাহ, তাসকিন দুজনকেই!
তাসকিনের কিছু কিছু শট দেখে মনে হয়েছে যেন ঝাঁনু ব্যাটার। আর ১৭ মাস পর টেস্ট দলে ডাক পাওয়া মাহমুদউল্লাহ ছিলেন সাবলীল। যেভাবে খেলছিলেন মনে হচ্ছিল না তাকে আউট করা সম্ভব জিম্বাবুয়ান বোলারদের! আউট হননিও, তাসকিন ফেরার পর এগারো নম্বর ব্যাটার ইবাদত হোসেন যখন রানের খাতা না খুলেই আউট হলেন মাহমুদউল্লাহ তখন ঠিক ১৫০ রানে অপরাজিত।

২৭৮ বল খেলে ১৭টি চার ১টি ছক্কার সাহায্যে এই রান করেছেন অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার। তাসকিন ১৩৪ বল খেলে ১১টি চারের সাহায্যে ৭৫ রান করে ফিরেছেন অল্পের জন্য বিশ্বরেকর্ড না গড়তে পারার আক্ষেপ নিয়ে।
টেস্টে নবম উইকেটের সর্বোচ্চ জুটি ১৯৫। ১৯৯৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে জোহানেসবার্গে পাকিস্তানের বিপক্ষে এই জুটি গড়েছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ক্রিকেটার মার্ক বাউচার ও প্যাট সিমক্স। হারারেতে তাসকিন-মাহমুদউল্লাহর নবম উইকেট জুটি আজ থামল ১৯১ রানে।

অর্থাৎ মাত্র ৪ রানের জন্য বিশ্বরেকর্ড হাতছাড়া হয়ে গেল বাংলাদেশি দুই ক্রিকেটারের। ১৯৬৭ সালে ওভালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নবম উইকেট জুটিতে ১৯০ রান তুলেছিলেন দুই পাকিস্তানি আসিফ ইকবাল ও ইনতিখাব আলম। এতোদিন সেটাই ছিল টেস্টে নবম উইকেটে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জুটি। তাদের ছাড়িয়ে মাহমুদউল্লাহ-তাসকিনের ১৯১ রানের জুটি এখন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।
জিম্বাবুয়ের হয়ে মুজারাবানি ৪টি এবং ভিক্টোর নিয়াউচি ও ডোনাল্ড তিরিপানো দুটি করে উইকেট নিয়েছেন।

SHARE