যে কারনে বিপুল ভোটে জিতবেন আইভী

68


দেশরিভিউ সংবাদ।।

নির্বাচনের জমজমাট প্রচারণায় এখন পর্যন্ত সহ-অবস্থান এবং শান্তিপূর্ণ অবস্থান বজায় রয়েছে। তৈমুর আলম খন্দকার এখন পর্যন্ত নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াননি। বরং তিনি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এবং তিনি আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে আহ্বান জানিয়েছেন, তারা যেন নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করেন। নারায়ণগঞ্জ নির্বাচনের শুরুতে তৈমুর আলম খন্দকার যে চমক দেখিয়েছেন তা নির্বাচনী প্রচারণা যতই এগিয়েছে ততই তিনি পিছিয়ে পড়েছেন। বিশেষ করে শেষ মুহূর্তে যখন আইভী বিরোধীরা গুটিয়ে গেছেন, তখন তৈমুর আলম খন্দকার নির্বাচনের দৌড়ে অনেকটাই পিছিয়ে গেছেন। তাছাড়া নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত জামায়াত এবং হেফাজত কাকে সমর্থন দিবে এটিও এখন একটি বড় রহস্য হয়ে রয়েছে। এ সমস্ত বাস্তবতায় নির্বাচনী প্রচারণার শেষ দিকে স্পষ্ট ব্যবধান লক্ষ্য করা যাচ্ছে আইডির সঙ্গে তৈমুর আলম খন্দকারের। নির্বাচনের পর্যবেক্ষণ সূত্রগুলো এরকম সিদ্ধান্তে উপনীত হচ্ছে যে, নারায়ণগঞ্জের সিটি নির্বাচনে সেলিনা হায়াৎ আইভী আবারও নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। তিনি বিপুল ভোটেই নির্বাচিত হবেন।

আইভী ইতিমধ্যেই আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের জানিয়ে দিয়েছেন, নির্বাচনে যেন কোনরকম কারচুপি করা না হয়, বিপক্ষ দলের এবং অন্যান্য বিরোধীদলের এজেন্টসহ কাউকে যেন ভোট কেন্দ্র থেকে বের করে না দেওয়া হয়। আইভী নারায়ণগঞ্জ নির্বাচন নিয়ে কোনো রকম বিতর্ক হোক এটি চাচ্ছেন না। তিনি কোনোভাবেই চাইছেন না যে, নারায়ণগঞ্জ নির্বাচন নিয়ে কোনো রকম প্রশ্ন উঠুক বা কোনরকম বিতর্ক হোক। বরং একটি অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে তিনি মেয়র হতে চান। আর তৈমুর আলম খন্দকার মনে করছেন যে, এই নির্বাচনের মাধ্যমে তিনি নারায়ণগঞ্জের বিকল্প হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন। কেউ কেউ মনে করেন যে, নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে আইভী এবং তৈমুর আলম খন্দকারের একটি গোপন সমঝোতা কিনা, সেটাও দেখার বিষয়। কারণ এই নির্বাচনের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে ওসমান পরিবারের নড়বড়ে হয়ে পড়েছে।

বিশেষ করে পরবর্তীতে নৌকার পক্ষে সমর্থন জানানো শামীম ওসমান স্পষ্টতই চাপের মুখে যেটা করেছেন সেটি সকলের কাছে পরিষ্কার। আর এই নির্বাচনে প্রথমদিকে বিরোধিতা করার মধ্য দিয়ে তিনি যে আওয়ামী লীগের শীর্ষ মহলের কাছে বিতর্কিত হয়েছেন সেটিও অনেকে মনে করছেন। আর এ কারণেই, কেউ কেউ মনে করে যে নারায়ণগঞ্জে এই নির্বাচনের ফলাফল যাই হোক না কেন আইভী এবং তৈমুর আলম খন্দকার উভয়েরই লাভ হবে। আইভী নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের একক নেতা হিসেবে আবির্ভূত হবেন, অন্যদিকে তৈমুর আলম খন্দকার বিএনপির প্রধান নেতা দাঁড়াবেন। এরকম একটি পরিস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের ফলাফল তৈমুর আলম খন্দকারও যে মেনে নিবেন, সেটা অনেকে ধারণা করছেন। ফলে এই নির্বাচনের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জে একটি নতুন রাজনৈতিক মেরুকরণ ঘটবে। বাংলা ইনসাইডার প্রক্ষেপণ করছে যে, নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে সেলিনা হায়াৎ আইভী অনেক ব্যবধানেই তার প্রতিদ্বন্দ্বীকে পরাজিত করবেন।
খবর: বাংলা ইনসাইডার

SHARE