শনিবার, এপ্রিল ২০, ২০২৪

এক্সক্লুসিভ নিউজ! খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান সাজাপ্রাপ্ত আসামি হওয়ায় দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে বিএনপির চেয়ারপার্সন এর দায়িত্ব পাচ্ছে ড.ইউনুস

দেশের রাজনীতিতে অবস্থান হারিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। ২০১৮ সালে কারাগারে যাওয়ার পর থেকে রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। তার অবর্তমানে দল চালাচ্ছে লন্ডনে পলাতক সাজাপ্রাপ্ত আসামি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

খালেদা ও তারেক দুইজনই সাজাপ্রাপ্ত আসামি হওয়ায় ২০১৮ সালে জাতীয় নির্বাচনের সময় বিএনপি ভাড়া করে ড.কামাল হোসেনকে। কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে এবং বিএনপির ভরাডুবি হয় নির্বাচনে। বিএনপির অনেক সিনিয়র নেতারাই প্রকাশ্যে বলেন ২০১৮ সালে ড.কামাল হোসেনকে ভাড়া করা বিএনপির সবচেয়ে বড় ভুল।

[এক্সক্লুসিভ নিউজ! খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান সাজাপ্রাপ্ত আসামি হওয়ায় দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে বিএনপির চেয়ারপার্সন এর দায়িত্ব পাচ্ছে ড.ইউনুস]

এবারও দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে একই পথে হাটছে বিএনপি। তবে এবার সিদ্ধান্ত বিএনপির একার নয় জানা গেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাব রয়েছে এতে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিএনপি এবার ভাড়া করছে ড.মুহাম্মদ ইউনুসকে।শুধুমাত্র ভাড়াই নয় বিএনপির চেয়ারপার্সন এর দায়িত্ব ও দেওয়া হবে ড. মুহাম্মদ ইউনুসকে।

[এক্সক্লুসিভ নিউজ! খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান সাজাপ্রাপ্ত আসামি হওয়ায় দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে বিএনপির চেয়ারপার্সন এর দায়িত্ব পাচ্ছে ড.ইউনুস]

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা জানান, বিএনপি এখন ভাড়াটে দলে পরিণত হয়েছে। বিএনপির রাজনীতি নির্ভর হয় বিদেশি প্রভুদের উপর। বিদেশি প্রভুরা সুতা যেদিকে টানে বিএনপি সেদিকে নাচে। এদের বাংলাদেশের জনগণের উপর আস্থা নেই। ড. ইউনুস এদেশের গরিব মানুষের কাছ থেকে আদায় করা হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। ড. ইউনুস শুরু থেকেই স্বপ্নের পদ্মা সেতুর বিরুদ্ধে দেশে-বিদেশে গভীর ষড়যন্ত্র করেছে। পদ্মা সেতুর বিরোধিতাকারীরা দেশ-জাতির শত্রু এমন শত্রুদের যুক্তরাষ্ট্রের কথায় বিএনপির চেয়ারপার্সন করা মানে বিএনপি ও দেশের শত্রু।

আরও পড়ুনঃ

সর্বশেষ