লন্ডন ফেরত ওয়াসিফ ২১ বছর বয়সে সফল গরু খামারি

164


বিশেষ প্রতিনিধি, দেশরিভিউ।।
চট্টগ্রাম শহরের দুই নম্বর গেইট এলাকার টেক্সটাইল মোড়। তার ঠিক পশ্চিম পাশেই এশিয়ান অ্যাগ্রো’র বিক্রয় কেন্দ্র। স্বত্বাধিকারী ওয়াসিফ আহম্মেদ সালাম। বয়স মাত্র ২১ বছর। লন্ডনে পড়াশুনা করেও ফিরে এসেছেন নিজ দেশে। দেশের প্রতি আছে অঢল ভালোবাসা থেকে গড়ে তুলেছেন গরুর খামার এশিয়ান অ্যাগ্রো।

ওয়াসিফ আহম্মেদ সালামের শৈশব কাটে চট্টগ্রাম শহরে। এসএসসি ও এইচএসসি শেষ করে পাড়ি জমান লন্ডনে। লন্ডনে উচ্চডিগ্রি নেওয়াকালীন সময়ে হঠাৎ মাথায় আসে খামারি হবার ব্যতিক্রমী ভাবনা।  তাই বাংলাদেশে এসেই ছোটবেলায় জমানো ঈদের সেলামি নিয়ে নেমে পড়েন এ ব্যবসাতে। ২০১৬ সালে যখন এ ব্যবসা শুরু করেন তখন পুঁজি মাত্র ২ লাখ টাকা। আর এ টাকা দিয়ে ৪টি গরু নিয়ে ওয়াসিফ আহম্মেদ সালাম যাত্রা শুরু করেছিলেন এশিয়ান অ্যাগ্রো।

কোরবানির ঈদে এশিয়ান অ্যাগ্রো’র সেল সেন্টার থেকে বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন সাইজের গরু।

পরের বছর ২০১৭ সালে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গরু এনে এ ফার্মের বাণিজ্যিক যাত্রা শুরু হয়। বর্তমানে ২ শতাধিক গরুর বিশাল বহর এই এশিয়ান অ্যাগ্রোতে। যার বাজারমূল্য ৩ কোটি টাকা। গরুকে সার্বক্ষণিক খাবার দেওয়া, জীবাণুমুক্ত রাখা, দেখভাল করার জন্য কাজ করছেন ১২ জন শ্রমিক। নিয়মিত পরিচর্যার কারনে অল্পদিনে ব্যবসায়িক এ সাফল্য দাবী করেন ওয়াসিফ আহম্মেদ সালাম।

ওয়াসিফ আহম্মেদ সালাম ব্যবসায়ে সফল হতে হলে চ্যালেঞ্জ নেওয়ার কথা বলেন। এক প্রশ্নের জবাবে সালাম বলেন,
নিঃসন্দেহে এ ব্যবসা লাভজনক। তবে আপনাকে চ্যালেঞ্জ নিতে হবে। চ্যালেঞ্জ নেওয়ার মানসিকতা তৈরি করতে হবে। লন্ডনের সিটি বিজনেস স্কুল থেকে বিবিএ শেষ করে এই কাজে হাত দিয়েছি। দেশে এসে গরুর খামার শুরু করলেও প্রথমদিকে এ বিষয়ে কোন প্রশিক্ষন ছিল না জানিয়ে ওয়াসিফ আহম্মেদ সালাম বলেন, কাজের প্রয়োজনে শিখতে হয়েছে। গরুর খামার শুরু করার পর ঢাকা, চট্টগ্রাম সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গরুর খামারে গিয়েছি। তাদের কাছ থেকে গরু লালন পালন সহ নিয়মিত পরিচর্যার ধারনা নিয়েছি। এভাবেই আজকের সফলতা।

ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে ওয়াসিফ আহম্মেদ সালাম বলেন, এশিয়ান অ্যাগ্রো থেকে বিদেশে গরু রফতানির পরিকল্পনা আছে। ডেইরি ফার্ম করার পরিকল্পনাও আছে। কোরবানির ঈদের বিক্রির বিষয় তিনি বলেন, প্রতিদিন ক্রেতারা আসছে, গরু পছন্দ করে টাকা দিয়ে চলে যান। অনেকে গরু কিনে বাড়ি ফিরছেন।

SHARE