শফিক আদনানকে নিয়ে অপপ্রচারের জবাব

67

দেশরিভিউ , নিউজ ডেস্ক চট্টগ্রাম :

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিক আদনানকে নিয়ে চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের অর্বাচীন শীর্ষ নেতার অনুসারী (গজব উদ্দিনের অনুসারী) এবং খুনের মামলার আসামী ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের ফেইক আইডি থেকে পরিচালিত অপপ্রচারের জবাব।

অত্যন্তু দুঃখের বিষয় শুধুমাত্র রাজনৈতিক সিদ্ধি হাসিলের উদ্দেশ্যে লড়াকু এই নেতার ঐতিহ্যবাহী পরিবারকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এই পোস্টটি দেওয়া হয়েছে, যা রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভুত। মুক্তিযোদ্ধকালীন, বিশেষ করে ৭৫ পরবর্তি প্রতিরোধ ও স্বৈরাচার বিরূধী আন্দোলনে এই পরিবারের ত্যাগ ও ভূমিকা অপরিসীম। শফিক আদনান এর শ্রদ্ধেয় পিতা মরহুম আলহাজ্ব আব্দুল হাকিমের সাথে সম্পর্কিত করে গুলিয়ে ফেলার অপচেষ্টা করা হয়েছে সেই ভুল তাদের পোস্টেই রয়ে গেছে।প্রথমত সেই ভুলটি হল আনোয়ার থানায় “কালার পোল” নামের কোন গ্রাম নাই এবং “থৈ গ্রাম” নামেও কোন গ্রাম নাই। আওয়ামীলীগের শ্রদ্ধেয় নেতা জনাব শফিক আদনান ভাইয়ের পিতার পৈতিক বাড়ি হল তত্‌কালীন পটিয়া থানার এবং বর্তমানে কর্ণফুলী থানার শিকলবাহা গ্রামের হাজীবাড়ি।

পোস্টে যে ভুল তথ্যাদি উপস্থাপন করা হয়েছে তা নিম্নে তুলে ধরা হল:
১। রাজাকার আব্দুল হাকিমের গ্রামের বাড়ি হল আনোয়ারা থানাধীন ওসখাইন গ্রাম। উনি রাজাকার হিসাবে এত দূর্ধষ্য ও কুখ্যাত ছিলেন যে তার নাম দিয়ে অন্য কারও নাম চালিয়ে দেওয়ার কোন সুযোগ নাই।
২। রাজাকার আব্দুল হাকিম কখনও জেলখানায় ছিলেন না।তাকে ৫ই সেপ্টেম্বর, ১৯৭১ সালে সুবেদার আবু ইসলামের নেতৃত্বে একদল মুক্তিযোদ্ধা তার নিজ বাড়িতে অপারেশন চালিয়ে তাকে হত্যা করে এবং সে সময়ে তার ছোট মেয়ে রিজুর পাঁন চিনির অনুষ্ঠান চলছিল।
৩। রাজাকার আব্দুল হাকিমের বাবার নাম মোশাররফ আলী।
৪। রাজাকার আব্দুল হাকিমের দুই স্ত্রী, দুই ছেলে ও দুই মেয়ে। তাদের নাম রাজাকার আবুল কালাম (আলম শাহ) ও রাজাকার আবুল ফজল এবং ফরিদা বেগম ও রিজু বেগম।

এবার চলুন শ্রদ্ধাভাজন শফিক আদনান এর পরিবার সম্পর্কে জেনে নিন:
মরহুম আলহাজ্ব আব্দুল হাকিম ছিল একজন শিল্প উদ্যেক্তা তার অবিভক্ত ভারতে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছিল অনেক এবং হেড অফিস ছিল কোলকাতা।বাংলাদেশের আঞ্চলিক ‌অফিস ছিল ৬৯ নং, ফিরিঙ্গিবাজার।তিনি মুক্তিযোদ্ধের সহায়ক শক্তি ছিলেন।তার শিকলবাহা গ্রামের বাড়িটি ছিল মুক্তিযোদ্ধা ও হিন্দু পরিবারের আশ্রয়স্থল। তিনি গ্রেফতার তো দূরে থাক, ১৯৭২ সালের শেষের দিকে তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম হজ্ব কাফেলার সাথে হজ্বে যান এবং তাদেরকে বিমানবন্দরে বিদায় জানান খোদ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান।তিনি ফিরিঙ্গিবাজর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ এর প্রাথমিক সদস্য ছিলেন। তার চার ছেলে ও চার মেয়ে।জ্যেষ্ঠ পুত্র এডভোকেট এম ওয়াদুদ(কবি ও সাংস্কৃতিক কর্মি হিসেবে তখন শ্যামল অদুদ হিসাবে পরিচিত) আওয়ামী পন্থি স্বমন্বয় আইনজীবি পরিষদের সাথে সম্পৃক্ত। তিনি মুক্তিযোদ্ধার সময় পাকবাহিনির হাতে গ্রেপ্তার হয়ে অকথ্য নির্যাতনের স্বীকার হন। তিনি ছাত্রলীগ কর্তৃক মনোনীত চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ১৯৭২-৭৩ সালে মাহবুব- নাছির পরিষদ হতে এ.জি.এস. নির্বাচন করেন এবং ০৭ বা ০৯ ভোটে হেরে যান। উনার মেজ ছেলে এস এম জামাল উদ্দিন বাবুল ৭৫ পরবর্তি প্রতিরোধ আন্দোলনের একজন সাহসী যোদ্ধা। তার সম্পাদনায় জাতীয় শোক দিবস উপল‌ক্ষ্যে ১৯৭৮,৭৯,৮০ সা‌লে “লক্ষ‌্য মু‌জি‌বের কন্ঠ” না‌মে এক‌টি ম‌্যাগা‌জিন বের কর‌তেন, ঐসম‌য়ে বঙ্গবন্ধুর নাম নেওয়াও দুঃসাহ‌সের ব‌্যাপার ছিল এবং এই বিষয়ে প্রচুর তথ্য বিভিন্ন বইয়ে পাওয়া যায়। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ এর সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন এবং ফিরিঙ্গিবাজার ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন।আজকের শফিক আদনান উনার ভাই এস এম জামাল এর অনুপ্রেরণায় রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন । মরহুম আলহাজ্ব আব্দুল হাকিম এর কনিষ্ঠ পুত্র রেযাউল্লাহ খোকন বড় ভাইদের অনুপ্রেরণায় তিনিও ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। তিনি স্বৈরাচার বিরূধী আন্দোলনে অগ্রনি ভূ‌মিকা পালন ক‌রেন। তৎকালীন সময়ে শফিক আদনান ডাক সাইডের ছাত্র নেতা ছিলেন এবং সে কারনে মরহুম আলহাজ্ব আব্দুল হাকিম এর ফিরিঙ্গিবাজার বাড়ি থেকেই স্বৈরাচার বিরূধী আন্দোলন পরিচালিত হত। ১৯৮৭ সালের ১৯শে নভেম্বর উক্ত বাড়িতে বোমা বিস্ফোরন ঘঠে, এতে শফিক আদনান, শফিকুল হাসান ও কমল দাস আহত হন।এই ঘঠনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়, যথারিথি এই মামলায় আসামী করা হয় মরহুম আলহাজ্ব আব্দুল হাকিম, এম রেযাউল্লাহ খোকন, এস এম জামাল উদ্দিন বাবুল, শফিক আদনান ও শফিকুল হাসান। এই মামলায় এম রেযাউল্লাহ খোকনকে গ্রেপ্তার করে তার উপর অকথ্য নির্যাতন চালায় এবং তাকে ৬ মাস কারাভোগ করতে হয়, তিনি বর্তমানে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী যুবলীগের সদস্য এবং ফিরিঙ্গিবাজার ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক। উপ‌রোক্ত বিষ‌য়ে সমস্ত তথ‌্য প্রমানা‌দি আমা‌দের কা‌ছে প্রমান সহকা‌রে আ‌ছে যা চাই‌লেই দেওয়া যাবে।

রেফা‌রেন্সঃ আ‌নোয়ারা একাত্ত‌রের গনহত‌্যা ও মু‌ক্তিযোদ্ধ, তথ্যসূত্র: জামাল উ‌দ্দিন, বলাকা প্রকাশ‌নি।

SHARE