ছবিঘর: শাপলা বিলের সৌন্দর্য্যে আপনিও মুগ্ধ হবেন

269
এমন একটি শাপলা বিলে প্রকৃতির অংশ হতে কার না মন চায়? ছবিতে শাপলার স্বর্গরাজ্যে এসে সে কথায় জানান দিচ্ছেন রাবেয়া বসরী মিতু।

সায়ান আহমেদ, দেশরিভিউ।।
একসময় খাল-বিলে অজস্র শাপলা ফুল দেখা যেত। লাল কিংবা সাদা শাপলা ফুল দেখে মুগ্ধ হননি, এমন লোক খুঁজে পাওয়া কঠিন। অথচ কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের জাতীয় ফুল।

বর্ষা মৌসুমে শাপলা ভরা বিলের মনমাতানো  সৌন্দর্যে চোখের পলক ফেলা যেনো মুশকিল। ফুলের স্বর্গরাজ্যের মুগ্ধতা ছড়িয়ে পড়ে মনে, বিলের জলে। শাপলা ফুলের গয়না পরে বিলে নৌকায় ঘুরে বেড়ায়নি, এমন গ্রাম্য কিশোরী পাওয়া বেশ মুশকিল। যৌবনের প্রারম্ভে প্রেমিকযুগল ভেসে বেড়ায় বর্ষায় জলে নবপ্রেমের জোয়ারে। তাদের মন অজান্তেই গেয়ে ওঠে, তুমি সুতোয় বেঁধেছ শাপলার ফুল/নাকি তোমার মন/আমি জীবন বেঁধেছি, মরণ বেঁধেছি/ ভালোবেসে সারাক্ষণ, ভালোবেসে সারাক্ষণ।

শাপলা বিলে ঘুরে ঘুরে প্রকৃতির রুপ লাবন্য উপভোগ করছেন ভ্রমনপিপাসু রাবেয়া বসরী মিতু।

এ বর্ষায় নাগরিক জীবন থেকে মুক্তি পেতে ছুটির ফাঁকে ঘুরে আসতে পারেন ঢাকার অদূরে সুন্দর একটি শাপলার রাজ্যে। নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জের কাঞ্চন ব্রিজের পাশেই আছে এমন একটি শাপলা বিল। এটিকে সবাই ‘শাপলার বিল’ নামে চিনলেও এর মূল নাম শিমুলিয়া কুলাদি বিল। সবচেয়ে আকর্ষনীয় ব্যাপার হলো, তিন ধরনের শাপলা জন্মে এ বিলে—লাল, সাদা ও বেগুনি রঙের। তবে লাল শাপলাই বেশি। সেখানে বেশ কয়েকটি ছোট নৌকা আছে। ইচ্ছা হলে সেগুলোতে ঘুরে বেড়াতে পারেন ঘণ্টা ভিত্তিক চুক্তিতে। শাপলা বিলে নৌকাতে ঘুরে ঘুরে দারুন দারুন ছবিও ক্যামেরাবন্দী করতে পারেন।

এখানে বেশ কয়েকটি ছোট নৌকা আছে। ইচ্ছা হলে সেগুলোতে ঘুরে বেড়াতে পারেন ঘণ্টা ভিত্তিক চুক্তিতে।

সাধারণত আগস্ট থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বিলে প্রচুর শাপলা থাকে। আর হ্যাঁ, যে ঋতুতে সবচেয়ে বেশি শাপলা হাসে সেটি শীতকাল। সেপ্টেম্বর, অক্টোবর, নভেম্বর এই ৩ মাস এত শাপলা থাকবে বিলে যে গুণতে গেলে অংক ভুলে যাবেন আপনি।

যেভাবে যাবেন: দেশের যে কোনো জায়গা থেকে রূপগঞ্জ যেতে পারেন। এরপর সেখান থেকে কাঞ্জন ব্রিজ। অথবা কুড়িল বিশ্বরোড থেকে মাইক্রোতে যেতে পারেন কাঞ্চন ব্রিজ। এরপর সেখান থেকে অটো রিকশায় যাবেন শিমুলিয়ায়।

SHARE