শনিবার, মার্চ ২, ২০২৪

মামুনের সংগৃহীত মধু এখন দেশের গন্ডি পেরিয়ে যাচ্ছে বিদেশেও

মামুনুর রশীদ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার একজন উদ্যোক্তা, যাকে এখন সবাই মধুমামুন বলেই চিনে। ১৯৯৭ সালে কোনো প্রশিক্ষণ ছাড়াই দুই হাজার ৬’শ টাকা দিয়ে মাত্র চারটি মধুর বাক্স নিয়ে শখের বশেই মৌ-চাষ শুরু করেন। একসময় পুরোদমে আত্মনিয়োগ করেন মৌ-চাষে। নিরলস পরিশ্রম আর অধ্যবসায়ের ফলে তিনি এখন স্বাবলম্বী। মামুনের সংগৃহীত মধু এখন দেশের গন্ডি পেরিয়ে যাচ্ছে বিদেশেও।

স্নাতকোত্তর শেষ করে মামুন সংসারের অভাব অনটন দূর করতে এক সময় চাকরির আশা না করেই বাণিজ্যিকভাবে মধুর চাষ করে ভাগ্য বদলানোর চেষ্টা করেন। বর্তমানে মামুনের ৩টি মৌ খামারে প্রায় সাড়ে ৪০০ বাক্স রয়েছে। তার মধু খামারে প্রায় ২৫ জন কর্মচারী কাজ করছেন।

মধু মামুনের এই মধু সংগ্রহের কাজে নিয়জিত মৌমাছির দল ফুলের পরাগায়ন বৃদ্ধি করাতে বাড়ছে কৃষি শস্য উৎপাদন। হলুদের সমারোহ দেখতে আর খাঁটি মধু নিতে প্রতিদিনই ভীর জমাচ্ছে দর্শনার্থী ও ক্রেতারা।

জেলার মডেল মৌ খামারি মামুন মধু চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। তাঁর এই সাফল্যে এলাকার অনেকেই মধু চাষে আগ্রহী হচ্ছে। এদিকে মধু চাষ আরও বৃদ্ধি করার লক্ষে সর্বাত্মক সহযোগিতা করে আসছে বলে জানালেন নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ হারুন-অর-রশীদ।

কুষ্টিয়ার মাঠ জুড়ে এখন শুধুই হলুদ সরিষাক্ষেত। সরিষা চাষে এবছর জেলায় লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে। সঠিকভাবে ফুলের পরাগায়নের ফলে মৌয়ালদের বাক্স পরিপূর্ণ হচ্ছে মধুতে আর অন্যদিকে সরিষার উৎপাদনও বৃদ্ধি পাচ্ছে। যেকারণে দেশে ভোজ্য তেলের যোগানও বাড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সর্বশেষ