স্কুল খুলতেই তৃতীয় ও পঞ্চম শ্রেনীর দুই ছাত্রী ‘করোনায় আক্রান্ত’

88

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি।।
সারাদেশে করোনাভাইরাসের কারণে দেড় বছর বন্ধ ছিল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। দেশের বিভিন্ন পর্যায় থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার জন্য সরকারের উপর চাপ সৃষ্টির একপর্যায়ে গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান শুরু হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার পরেই গোপালগঞ্জে দুইজন প্রাইমারী স্কুলের ছাত্রীর শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

জানা গেছে, গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীর শরীরে সর্বপ্রথম করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টা নিশ্চিত হয়। আক্রান্ত এই শিক্ষার্থী উপজেলার ৪নং ফেরধরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী। ওই ছাত্রী আক্রান্ত হওয়ার পরে তৃতীয় শ্রেণির পাঠদান ১৪ দিনের জন্য বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা শিক্ষা অফিস।

কোটালীপাড়ার পর গোপালগঞ্জ পৌরসভার ১০২নং বীণাপাণি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীর শরীরে করোনা পজিটিভ আসে ২১ সেপ্টেম্বর। এ ঘটনার পর স্থানীয় প্রশাসন ওই বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির কক্ষটি তালাবন্ধ করে দিয়েছে।
বিদ্যালয় সূত্রে  জানা যায়, করোনাভাইরাসের কারণে দেড় বছর বন্ধ থাকার পর ১২ সেপ্টেম্বর থেকে বিদ্যালয় পাঠদান শুরু হয়েছে। ওই দিন অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পাঠদানে অংশ নেয় সে। ১৪ সেপ্টেম্বর ওই ছাত্রীর মাথা ব্যথা ও জ্বর শুরু হয়। এরপর থেকে সে আর বিদ্যালয়ে আসেনি।
ওই ছাত্রীর মা বলেন, এতদিন আমার মেয়ে বাড়িতে ছিল এবং সুস্থ ছিল। গত ১২ সেপ্টেম্বর মেয়েকে বিদ্যালয়ে পাঠাই ১৪ সেপ্টেম্বর সে মাথা ব্যথা হালকা জ্বর অনুভব করে। ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে তার বিদ্যালয়ে যাওয়া বন্ধ করে দেই। ২১ তারিখে তার জ্বর না কমায়  করোনা পরীক্ষা করতে নমুনা দেয়া হয় স্বাস্থ্য বিভাগে। বুধবার তার করোনা পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসে। এরপর থেকে তাকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। তাকে দুই দিন অক্সিজেন দেওয়ার পর এখন কিছুটা শারীরিক উন্নতি হয়েছে। আমাদের পরিবারে অপর কোনো সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়নি।

বীণাপাণি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক পারভীন আক্তার বলেন, ওই ছাত্রী সর্বশেষ ১৪ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয়ে ক্লাস করে। আমরা সার্বক্ষণিক তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি। এছাড়া সে যে কক্ষে ক্লাস করেছিল সেই কক্ষটি স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশে বন্ধ রাখা হয়েছে। বাকি শ্রেণির ক্লাসগুলো স্বাভাবিক নিয়মেই চলছে। তবে অন্য কোনো শিক্ষার্থীর মধ্যে করোনার কোনো উপসর্গ দেখা যায়নি। আমরা শিক্ষার্থীদের নিয়মিত  তাপমাত্রা মেপে শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ করাচ্ছি।

পরপর দুইজন প্রাইমারী স্কুলের ছাত্রীর মাঝে করোনা সংক্রমনের খবরে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে।

SHARE