বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪

ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদার বাংলাদেশের

রাজা জিগমে খেসার নামগেল ওয়াংচুকের সঙ্গে বৈঠকে ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানিতে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা আগ্রহ প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাসান মাহমুদ।

গত ২৫ মার্চ (সোমবার) ঢাকার একটি হোটেলে ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুকের সঙ্গে বৈঠকে এ কথা বলেন তিনি। এ সময় মন্ত্রী জলবিদ্যুৎ আমদানি ও প্রক্রিয়ায় ভারতের প্রত্যাশিত সহযোগিতার বিষয়ে চলমান আলোচনার কথা উল্লেখ করেন।

রাজা ওয়াংচুক ও রানি জেটসুন পেমা বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের জন্য ঢাকা সফর করেন। এ সময় রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন বিমানবন্দরে তাদের উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান।

২০২২ সালের সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারতে রাষ্ট্রীয় সফরের সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভারতের মাধ্যমে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ আমদানির সুবিধার্থে সম্মত হন।

এ বিষয়ে ভুটান, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় আলোচনা চলছে। বাংলাদেশ ২০২৩ সালে ভুটান থেকে প্রাথমিকভাবে প্রায় ১৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির পরিকল্পনা করেছিল। এরই মধ্যে ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ, ভারত ও ভুটানের মধ্যে একটি ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) উন্নয়নের চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। এ চুক্তির লক্ষ্য একটি পাওয়ার প্লান্ট নির্মাণের জন্য যৌথ বিনিয়োগকে সহজতর করা।

ভুটানের স্থাপিত ক্ষমতা ছিল ২ হাজার ৩৩৫ মেগাওয়াট, যা দেশের মোট জলবিদ্যুৎ সম্ভাবনার ৭ শতাংশের প্রতিনিধিত্ব করে। ২০২১ সালে মোট উৎপাদনের পরিমাণ ছিল ১১ হাজার ০৫৯ গিগাওয়াট/ঘণ্টা, যার ৭৩ দশমিক ৯ শতাংশ বা ৮ হাজার ১৭৮.৩৮ গিগাওয়াট/ঘণ্টা ভারতে রফতানি হয়েছে।

সে সময় তিনটি জলবিদ্যুৎ প্রকল্প- পুনা-১, পুনা-২ ও নিকাছু এর কার্যক্রম শুরু হয়, যা যথাক্রমে এ বছর জুলাই এবং ডিসেম্বর ২০২৩-এর মধ্যে সম্পন্ন জন্য নির্ধারিত ছিল। একইভাবে তিনটি মিনি জলবিদ্যুৎ প্রকল্প- বুরগাংছু (৫৪ মেগাওয়াট), ইউঙ্গিছু (৩২ মেগাওয়াট) এবং সুছু (১৮ মেগাওয়াট) সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী যথাক্রমে ডিসেম্বর ২০২৪, মার্চ ২০২৫ এবং জুলাই ২০২৪ এর মধ্যে চালু হওয়ার জন্য নির্ধারিত ছিল।

ভুটান থেকে শক্তি আমদানির বৈশিষ্ট্য বোঝার জন্য ভারত ও ভুটানের মধ্যে শক্তি সহযোগিতার প্রকৃতি উপলব্ধি করা অপরিহার্য। এই দুই দেশের মধ্যে শক্তির সহযোগিতা গভীরভাবে একটি দীর্ঘস্থায়ী এবং পারস্পরিকভাবে উপকারী অংশীদারিত্বের মধ্যে নিহিত, যা প্রাথমিকভাবে জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রিক।

ভারত ও ভুটানের মধ্যে বিদ্যুৎ বিনিময়ের দিক ঋতু অনুসারে পরিবর্তিত হয়। গ্রীষ্মকালে ভুটান ভারতে বিদ্যুৎ রফতানি করে। শীতকালে ভুটান ভারত থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করে। বিশেষ করে আর্দ্র ঋতুতে ভারত ও ভুটানের মধ্যে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বিদ্যুতের লেনদেন হয়।

বর্ষা ঋতু ভুটানে পানির স্তর বৃদ্ধির দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। এর ফলে বিশেষ করে জুন, জুলাই এবং আগস্ট মাসে বিদ্যুৎ প্রবাহ বৃদ্ধি পায়। তবে আগস্ট থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত শীত শুরু হওয়ায় বিদ্যুৎ ব্যবসায় ক্রমশ কমতে থাকে। ভুটানে শুষ্ক শীতের অভিজ্ঞতা হয় যেখানে গড় বৃষ্টিপাত কমে যায় এবং গরম করার জন্য উচ্চ বিদ্যুতের চাহিদা থাকে। বছরের পর বছর ধরে ভুটান থেকে রফতানি উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে, যা ২০০০ সালে ১,৪৬০.৫ গিগাওয়াট/ঘণ্টা থেকে বেড়ে ২০১৯ সালে ৬,১৮২.৫ গিগাওয়াট/ঘণ্টা এ পৌঁছেছে।

ভুটানে অসংখ্য জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রে ভারতের বিনিয়োগের লক্ষ্য হল দেশে উপলব্ধ স্বল্পমূল্যের নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎ অ্যাক্সেস করা, যা উভয় দেশের জন্য পারস্পরিক সুবিধা প্রদান করে।

ভুটান ও ভারত পাঁচটি স্বতন্ত্র ট্রান্সমিশন লাইনের মাধ্যমে যুক্ত। ভারতের মধ্যে দুটি অঞ্চল জুড়ে কাজ করছে উত্তর-পূর্ব অঞ্চল এবং পূর্বাঞ্চল। পূর্বাঞ্চলের (ইআর) সঙ্গে সংযোগের সুবিধা প্রদানকারী ট্রান্সমিশন লাইনগুলোর মধ্যে রয়েছে ৪০০kV মাংদেছু-আলিপুরদুয়ার ১ এবং ২ লাইন। ১৩২KV-গেইলেগফু-সালাকাটি এবং ১৩২kV মোটাঙ্গা-রাঙ্গিয়া ট্রান্সমিশন লাইনের মাধ্যমে ভুটান ভারতের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের (NER) সঙ্গেও সংযুক্ত।

পূর্বে উল্লিখিত হিসাবে, ভুটান প্রাথমিকভাবে ভারতে বিদ্যুৎ রফতানি করে একটি নিট রফতানিকারক অবস্থা বজায় রাখে। ভুটান ও ভারতের মধ্যে বিদ্যমান অবকাঠামো ভুটান থেকে বাংলাদেশে জ্বালানি আমদানি সহজতর করার জন্য একটি দৃঢ় ভিত্তি স্থাপন করে। ভুটান ও ভারতের মধ্যে সুপ্রতিষ্ঠিত ট্রান্সমিশন লাইন এবং আন্তঃসংযুক্ত গ্রিড সহ, শক্তি বিনিময়ের জন্য ভৌত কাঠামো ইতিমধ্যেই রয়েছে। এই অবকাঠামো শুধু ভুটানকে ভারতে উদ্বৃত্ত জলবিদ্যুৎ রফতানি করতে সক্ষম করে না বরং বাংলাদেশের মতো প্রতিবেশী দেশগুলোতে জ্বালানি বাণিজ্য নেটওয়ার্ক প্রসারিত করার জন্য একটি বাহকও প্রদান করে। বাংলাদেশের সীমান্তের সঙ্গে ভুটানের ভৌগোলিক নৈকট্য শক্তি আমদানির জন্য কানেক্টিভিটি অবকাঠামো নির্মাণের কাজকে সহজ করে। ভুটান এবং বাংলাদেশের মধ্যে স্বল্প দূরত্বের পরিপ্রেক্ষিতে সঞ্চালন লাইন ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ আরো সম্ভাব্য এবং সাশ্রয়ী হয়ে ওঠে। এই প্রক্সিমিটি ট্রান্সমিশন লস কমিয়ে দেয় এবং দুই দেশের মধ্যে শক্তি স্থানান্তরের দক্ষতা বাড়ায়।

বিশেষ করে বাংলাদেশের বিদ্যুৎ চাহিদার গতিশীলতার পরিপ্রেক্ষিতে শক্তি বাণিজ্যের সময় এর সুবিধা সহজতর এবং সর্বাধিক করার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

সারাবছর ধরে বাংলাদেশে বিদ্যুতের চাহিদার ঋতুগত তারতম্যের সম্মুখীন হয়। বিশেষ করে শীত ও গ্রীষ্মের মাসগুলোতে ওঠানামা ঘটে এবং বর্ষা মৌসুমে শীর্ষে থাকে। শীতকালে বাংলাদেশে বিদ্যুতের চাহিদা সামান্য কমে যায়। যাইহোক, গ্রীষ্মের মাসগুলোতে তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে শীতল যন্ত্রের ব্যবহার বৃদ্ধিতে বিদ্যুতের চাহিদা বৃদ্ধি পায়।

বর্ষা মৌসুমে এই চাহিদা শীর্ষে পৌঁছে, যা কৃষি চাহিদা ও বর্ধিত অভ্যন্তরীণ ব্যবহারসহ বিভিন্ন কারণের দ্বারা চালিত হয়। বিদ্যুতের চাহিদার এই ঋতুগত ওঠানামা ভুটান ও নেপালের মতো দেশগুলোর জন্য একটি অনন্য সুযোগ উপস্থাপন করে, যেখানে জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য পর্যাপ্ত জলের প্রাপ্যতার কারণে বর্ষা মৌসুমের সঙ্গে বিদ্যুৎ উৎপাদনের শীর্ষে থাকে। ভুটান ও নেপালে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ চাহিদা সময়ের সঙ্গে শীর্ষ উৎপাদনের সমন্বয় এই দেশগুলোর মধ্যে জ্বালানি বাণিজ্যের জন্য একটি অনুকূল পরিবেশ তৈরি করে। বৈদ্যুতিক শক্তি বাণিজ্যের জন্য বহু-দেশিয়, বাজার-ভিত্তিক পদ্ধতি অবলম্বন করা BBIN অঞ্চলে শক্তি সম্পদের পূর্ণ সম্ভাবনাকে আনলক করার চাবিকাঠি রাখে। ভুটান, নেপাল, ভারত ও বাংলাদেশ জুড়ে পরিপূরক ঋতু প্রজন্মের নিদর্শনগুলোকে কাজে লাগিয়ে এবং প্রজন্মের সম্পদের ব্যবহারকে অনুকূল করে এই পদ্ধতিটি কার্যকরভাবে এই দেশগুলোর বার্ষিক ঘণ্টার চাহিদাগুলোকে সমাধান করতে পারে।

এদিকে, ৪ মার্চ বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ স্পষ্ট করে বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে অগ্রসর হওয়ার জন্য যৌথ প্রচেষ্টার উল্লেখযোগ্য সুযোগ রয়েছে। বাংলাদেশে ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় ভার্মার সঙ্গে তার মন্ত্রণালয়ের কার্যালয়ে বৈঠকের সময় নসরুল হামিদ নেপাল ও ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানির প্রচেষ্টায় অগ্রগতির সঙ্গে প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে ৯ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির পরিকল্পনা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, নেপাল থেকে ৪০ মেগাওয়াট জলবিদ্যুৎ আমদানির জন্য আসন্ন মাসে একটি আসন্ন চুক্তি আনুষ্ঠানিক হবে বলে আশা করা হচ্ছে। নবায়নযোগ্য শক্তি আমদানির দিকে চলমান প্রচেষ্টার পাশাপাশি ভারতীয় কোম্পানি জিএমআর-এর মাধ্যমে নেপাল থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির জন্য আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। মেঘালয়, ত্রিপুরা বা আসাম থেকে আমদানি ও রফতানি সংক্রান্ত আলোচনাও উল্লেখ করা হয়েছে।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী এইচ-এনার্জির মাধ্যমে এলএনজি ও গ্যাস আমদানির প্রক্রিয়ার নিকটবর্তী চূড়ান্তকরণের উপর জোর দেন, প্রতিবেশী দেশ বিশেষ করে ভারতের তসঙ্গে সংযোগ বাড়াতে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা তুলে ধরেন। এ প্রচেষ্টায় ভারতের কাছ থেকে সহযোগিতা কামনা করেন।

তিনি নেপাল থেকে বাংলাদেশে একটি ডেডিকেটেড ট্রান্সমিশন লাইন স্থাপনের গুরুত্বের ওপর জোর দেন, যেন উভয় দেশের উপকার হয়।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী জৈব-জ্বালানি উদ্যোগে সহযোগিতার পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতার পরিধি বিস্তৃত করতে মাসিক স্টেকহোল্ডার মিটিং করারও প্রস্তাব করেন। তিনি এলপিজির ক্রমবর্ধমান চাহিদা তুলে ধরেন এবং ভারতের জ্বালানি খাতে বাংলাদেশি বেসরকারি বিনিয়োগকারীদের সক্রিয় অংশগ্রহণের পক্ষে কথা বলেন।

জবাবে হাইকমিশনার নেপাল থেকে বাংলাদেশে জলবিদ্যুতের চলমান আমদানি এবং নেপাল থেকে ভারতের প্রায় ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির উল্লেখ করে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ক্রমবর্ধমান সহযোগিতার কথা স্বীকার করেন।

বৈঠকে আলোচনায় উচ্চ-ভোল্টেজ ট্রান্সমিশন লাইন, নবায়নযোগ্য জ্বালানি, বিদ্যুৎ আমদানি-রফতানি, আর-এলএনজি, জ্বালানির ক্ষমতা বৃদ্ধি, জ্বালানি দক্ষতা এবং ভবিষ্যতের আঞ্চলিক সংযোগের সম্ভাবনার মতো বিষয়গুলোও অন্তর্ভুক্ত ছিল। তাই বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে জ্বালানি সহযোগিতার ক্ষেত্রে ভারতের উৎসাহ ও প্রতিশ্রুতি স্পষ্ট।

এ অঞ্চলের শক্তির ল্যান্ডস্কেপের একটি গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় হিসেবে ভারত শক্তির চ্যালেঞ্জগুলোকে কার্যকরভাবে মোকাবিলা করার জন্য প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানোর গুরুত্ব স্বীকার করে। বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে জ্বালানি বাণিজ্য সহজতর করার জন্য ভারতের ইচ্ছা আঞ্চলিক জ্বালানি নিরাপত্তা ও টেকসইতা বৃদ্ধিতে একটি নির্ভরযোগ্য অংশীদার হিসেবে তার ভূমিকার ওপর জোর দেয়।

ভুটান থেকে জ্বালানি আমদানির উদ্যোগ বাংলাদেশের জন্য একটি সম্ভাব্য এবং টেকসই উপায়ে ক্রমবর্ধমান জ্বালানি চাহিদা মেটাতে একটি উল্লেখযোগ্য সুযোগকে নির্দেশ করে। বাংলাদেশের শক্তির ব্যবহার বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে শক্তি আমদানির উপায়গুলো অন্বেষণ করা অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। ভুটান তার যথেষ্ট জলবিদ্যুৎ সম্ভাবনার কারণে একটি প্রতিশ্রুতিশীল বিকল্প উপস্থাপন করেছে। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণভাবে বাংলাদেশ ও ভুটানের ভৌগোলিক নৈকট্য এবং ভারতের মাধ্যমে তাদের সংযোগ এই শক্তি বাণিজ্য ব্যবস্থার সম্ভাব্যতা বাড়ায়। এই উদ্যোগকে সহজতর করতে ও সমর্থন করার জন্য ভারতের ইচ্ছা আঞ্চলিক শক্তি নিরাপত্তার সম্ভাবনাকে আরো শক্তিশালী করে।

বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে শক্তি সঞ্চালনের একটি বাহক হিসেবে কাজ করে ভারত এ অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা ও সহযোগিতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। জ্বালানি খাতে বাংলাদেশ, ভুটান এবং ভারতের মধ্যে সহযোগিতা শুধুমাত্র বাংলাদেশের তাৎক্ষণিক জ্বালানি চাহিদা মেটায় না বরং দীর্ঘমেয়াদী আঞ্চলিক জ্বালানি নিরাপত্তার ভিত্তিও তৈরি করে। শক্তির উৎস বৈচিত্র্যকরণ এবং আন্তঃসীমান্ত শক্তি বাণিজ্যের প্রচারের মাধ্যমে এই অংশীদারিত্ব এই অঞ্চলের শক্তি অবকাঠামোর স্থিতিস্থাপকতা এবং স্থায়িত্বে অবদান রাখে।

এই ধরনের উদ্যোগগুলো প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক একীকরণ এবং সহযোগিতাকে উৎসাহিত করে বর্ধিত আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা ও সমৃদ্ধির পথ প্রশস্ত করে। একে অপরের শক্তি ও সম্পদের ব্যবহার করে বাংলাদেশ, ভুটান এবং ভারত সম্মিলিতভাবে শক্তির ঘাটতির কারণে সৃষ্ট চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে পারে। সেই সঙ্গে এই অঞ্চলের সামগ্রিক আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখতে পারে।

ভুটান থেকে জ্বালানি আমদানির উদ্দেশ্য বাংলাদেশের জন্য জ্বালানি নিরাপত্তা ও টেকসই নিশ্চিত করার জন্য একটি কৌশলগত পদক্ষেপের ইঙ্গিত দেয়। ভারতের সমর্থন এবং সহযোগিতায়, এই উদ্যোগটি শুধুমাত্র তাৎক্ষণিক শক্তির চাহিদা মেটায় না বরং আঞ্চলিক সহযোগিতাকে শক্তিশালী করে এবং পারস্পরিক সমৃদ্ধির প্রচার করে। একসঙ্গে কাজ করার মাধ্যমে তিনটি দেশ একটি স্থিতিস্থাপক এবং আন্তঃসংযুক্ত শক্তি ইকোসিস্টেম তৈরি করতে পারে, যা এই অঞ্চলের সব স্টেকহোল্ডারদের উপকার করে।

সর্বশেষ